ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৫০ ঢাকা, শুক্রবার  ২৭শে এপ্রিল ২০১৮ ইং

অনুমোদনহীন পশুরহাট বসানো যাবেনা– আইজিপি

index_52193

শীর্ষ মিডিয়া ২১ সেপ্টেম্বর ঃ ঢাকা : গতকাল শনিবার দুপুরে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের সম্মেলন কক্ষে আসন্ন  ঈদ-উল-আযহা এবং দুর্গাপূজার আইন-শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে পৃথক দুটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন পুলিশ ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি)হাসান মাহমুদ খন্দকার।

সভায় নির্ধারিত ঘাট ব্যতীত কোরবানীর পশু উঠানামা রোধ, পশুর হাটে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন, পশুর হাট ইজারাদার কর্তৃক হাসিল হার প্রদর্শন, জাল নোট শনাক্তকরণ মেশিন স্থাপন এবং যান চলাচল স্বাভাবিক রাখা ইত্যাদি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কোরবানীর পশু পরিবহনে ব্যবহৃত নৌকা ও ট্রাকে চাঁদাবাজি রোধে পুলিশ ও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দায়িত্ব পালন করবেন। ঈদের দিন অস্থায়ী চামড়া ক্রয় কেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হবে এবং পশুর চামড়া পাচার রোধে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক দৃষ্টি রাখবে। নৌপথে যাত্রীদের নিরাপত্তা এবং চাঁদাবাজি রোধে নবগঠিত নৌ পুলিশ ইউনিট অন্যান্য পুলিশ ইউনিটের সহায়তায় চেকপোস্ট স্থাপনসহ টহলের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এছাড়াও জাতীয় ঈদগাহ ময়দানসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের ঈদ জামাতস্থলে পর্যাপ্ত নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। সুষ্ঠুভাবে যানবাহন চলাচলের সুবিধার্থে এবং দুর্ঘটনা প্রতিরোধে মহাসড়কে নসিমন, করিমন, ভটভটি ইত্যাদি যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।
অপরদিকে, শারদীয় দুর্গাপূজার নিরাপত্তায় পুলিশ প্রাক পূজা, পূজা চলাকালীন এবং পূজা পরবর্তী সময়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। সভায় উপস্থিত পূজা উদ্যাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ পূজাকে ঘিরে গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করেন। তারা পুলিশ ও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও সারাদেশে শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপূজা উদযাপিত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন। এ বছর ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় দুই শতাধিক মন্ডপসহ সারাদেশে ২৮ হাজারের বেশি মন্ডপে দুর্গাপূজা আয়োজন করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
সভায় অতিরিক্ত আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক, অতিরিক্ত আইজিপি মো. আমির উদ্দিন, এসবির অতিরিক্ত আইজিপি ড. মো. জাবেদ পাটোয়ারী, র‌্যাব’র মহাপরিচালক মো. মোখলেছুর রহমান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার বেনজীর আহমেদ, অতিরিক্ত আইজিপি মো. মইনুর রহমান চৌধুরী, সকল পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ, হাইওয়ে, রেলওয়ে, নৌ, ট্যুরিস্ট ও ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশসহ অন্যান্য ইউনিটের ডিআইজিবৃন্দ, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ এবং বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি কাজল দেবনাথ এবং ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নারায়ন সাহা মনি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।