Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:১৩ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

আনিসুল হক
আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক

‘৭ খুনের রায়ে জনগণের ভীতি দূর ও সন্তুষ্ট হবে’ – আইনমন্ত্রী

নারায়গঞ্জের সাত খুনের মামলার রায়ে জনগণ সন্তুষ্ট হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক।

‘এই ঘৃণ্য অপরাধে যে একটা ভীতির সৃষ্টি হয়েছিল সেই ভীতি দূর হবে,’ সচিবালয়ে সোমবার নিজ দফতরে রায়ের প্রতিক্রিয়ায় এ মন্তব্য করেন আইনমন্ত্রী।

নারায়গঞ্জের সাত খুনের মামলায় নূর হোসেন ও র‌্যাব-১১ এর বরখাস্তকৃত অধিনায়ক লে. কর্নেল সাঈদ তারেকসহ ২৬ জনের ফাঁসির রায় ঘোষণা করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ এনায়েত হোসেন।

সোমবারের এই রায়ে বাকি ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘যারা এ ঘৃণ্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত এর সাক্ষ্য-প্রমাণ আদালত পেয়েছেন। আমি যতটুকু আইন জানি, যদি হত্যাকাণ্ড প্রমাণিত হয় তাহলে ফাঁসি দেয়াটা হচ্ছে ফার্স্ট পানিশমেন্ট, মিটিগেশন বা অন্যান্য কারণ দেখানো হলে এটাকে যাবজ্জীবন দেয়া যায়।’

তিনি বলেন, ‘বিজ্ঞ আদালত এই অপরাধের নৃশংসতা, এই অপরাধের ষড়যন্ত্রের যে ঘৃণ্যতা এইসব বিচার করে ২৬ জনকে ফাঁসি দিয়েছেন। আমার মনে হয় জনগণ এই রায়ে সন্তুষ্ট হবে এবং এই ঘৃণ্য অপরাধে যে একটা ভীতির সৃষ্টি হয়েছিল সেই ভীতি দূর হবে।’

আনিসুল হক বলেন, ‘কোনো অব ক্রিমিনাল প্রসিডিউরের ৩৭৪ ধারা অনুযায়ী এটা কনফারমেশনের জন্য হাইকোর্ট বিভাগে যাবে, যখনই কোনো মামলায় ফাঁসি দেয়া হয় সেই ফাঁসি কার্যকর করার আগে অটোম্যাটিক্যালি ফর কনফারমেশন আইনত হাইকোর্ট ডিভিশনে যাবে। সেই পন্থায় এটা হাইকোর্ট ডিভিশনে যাবে। হাইকোর্ট ডিভিশন যদি কনফার্ম করেন তারপর আবার আপিল বিভাগ আছে, সেখানে আপিল করার সুযোগ থাকবে। সেই প্রক্রিয়া শেষ হলে রায় কার্যকর হবে।’

এ সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কোনো নির্দিষ্ট সময় আছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘সাত দিনের মধ্যে এ মামলার নথিসহ সবকিছু হাইকোর্ট বিভাগে পাঠিয়ে দিতে হবে। এটাই একমাত্র নির্দিষ্ট সময়, এরপর আর কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই।’

ফাঁসির রায় দেয়া ২৬ জনের মধ্যে ২৫ জনই র‌্যাবের সদস্য, এদের দায়িত্ব ছিল জনগণকে রক্ষা করা- বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে। যেই অপরাধ করুক, তাকে সুষ্ঠু বিচারের আওতায় এনে তার বিচার করাই হচ্ছে রাষ্ট্রের দায়িত্ব। আমার মনে হয় সেই দায়িত্ব আমরা পালন করতে পেরেছি।’

সুশৃংখল আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাঠামোগত বড় পরিবর্তন প্রয়োজন আছে বলে মনে করেন কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যেকটি বাহিনীর জন্য নিজ মন্ত্রণালয় দায়িত্বে আছে। তাদের বিবেচনা এখন তারা কি করবেন। এটা আইন মন্ত্রণালয় বলে দিতে পারবে না।’

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন, গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহীমকে অপহরণ করা হয়।

তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে তাদের লাশ পাওয়া যায়।