ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:১৪ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

৭৫-এর ভিলেন ছিলেন মোস্তাক ও জিয়া, এখন খালেদা জিয়া

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, আগুনে মানুষ পোড়ানোর মধ্য দিয়ে খালেদা জিয়া রাজনীতির ভিলেন হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন।
তথ্যমন্ত্রী আন্দোলনের নামে চলমান রাজনৈতিক কর্মকান্ডকে অশুর শক্তির সাথে তুলনা করে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক চিন্তাচেতনার সঙ্গে অশুভ শক্তি কাজ করছে, যার সঙ্গে সমন্বয় ঘটেছে বুদ্ধির দুষ্টুমির, চাতুরতার। ওনি এখন রাজনীতির ভিলেন। ’৭১-এ ভিলেন ছিল পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসর রাজাকার, আলবদররা। ’৭৫-এর ভিলেন ছিলেন খন্দকার মোস্তাক ও জেনারেল জিয়া। এখন রাজনীতির ভিলেন জঙ্গিবাদ ও তাদের পৃষ্ঠপোষকতাকারী খালেদা জিয়া
তিনি বলেন, কারণ আমরা দেখছি, একেবারে ঠান্ডা মাথায় চলন্ত বাসের মানুষগুলোকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারা। এটি একটি দানবীয় কাজ। তার এই দানবীয় কাজের সঙ্গে খলনায়ক চরিত্রও কাজ করে। ওনি গণতন্ত্রের ঘোমটা পরেছেন; কিন্তু সাম্প্রদায়িক সত্তায়ও বিশ্বাস করেন। আপনি (খালেদা) যতই গণতন্ত্রের ঘোমটা পরেন না কেন, এটা সবাই জানে যে, আপনি জঙ্গিবাদের বন্ধু।’
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রাঙ্গণে ‘জীবনানন্দ উৎসব কমিটি ও বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদ’ যৌথ আয়োজনে ‘জীবনানন্দ উৎসব: রূপসী বাংলা পুরস্কার প্রদান, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে গ্রন্থ ও অডিও সিডি’র প্রকাশনা’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
কলকাতার কবি, জীবনানন্দ উৎসব কমিটির সভাপতি অমৃত মাইতি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অধ্যাপক আবদুল মান্নান চৌধুরী, কবি কাজী রোজী এমপি, ভারতের প্রাবন্ধিক সুন্নাত জাহা, লেখক মোনায়েম সরকার, কবি নুরুল হুদা ও কবি আসলাম সানি।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমি কবিতা ভালোবাসি, কবিদের ভালোবাসি; কিন্তু আমি রাজনীতির মানুষ। বক্তব্যে, আলোচনায় এখন রাজনীতি চলে আসে। আন্দোলনের নামে বাইরে আগুনে পুড়িয়ে মানুষ মারা হচ্ছে। এ অবস্থায়ও কবিদের বই প্রকাশ হচ্ছে।
নাশকতা-অন্তর্ঘাতের মধ্য দিয়েও জীবন চলছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কবি শিল্পী সাহিত্যিকরা তাদের কাজ করে চলেছেন। আমি রাজনীতির মানুষ, এখনো রাজপথে আছি মানুষের অধিকারের পক্ষে আছি, মনুষত্বের পক্ষে আছি।
তিনি কবিদের গোলাপ ফুল হিসেবে অভিহিত করে বলেন, কোনো কবি, লেখক জঙ্গিবাদের পক্ষে নেই, সাম্প্রদায়িকতার পক্ষে নেই। কবিরা মানবতা ও মনুষত্বের পক্ষে।
কবি সাহিত্যিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা আমাদের পাশে থেকে মানুষকে মনুষ্যত্ব অর্জন করার শক্তি যোগাবেন, প্রেরণা যোগাবেন। যারা পুরস্কার পেয়েছেন, ভবিষ্যতে তারা আমাদেরকে একটি সুন্দর সমাজ, ভালো সমাজ, হৃদয়বান সমাজ, মানবিক সমাজ তৈরি করার জন্য প্রেরণা যোগাবেন।
মন্ত্রী শাহাদাত হোসেন নিপু’র নিঃশ্বাসে-বিশ্বাসে বঙ্গবন্ধু, মৃত্যুঞ্জয়ী বঙ্গবন্ধু ও চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধুর তিনটি অডিও সিডি’র এবং অধ্যাপক আবদুল মান্নান চৌধুরীর বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে নিয়ে মিথ্যা ও মিথ্যাচার গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।
তিনি রূপসী বাংলা’র পুরস্কারপ্রাপ্ত কবি অঞ্জনা সাহা, কাজী রোজী, সুন্নাত জাহা ও সিনহা আবুল মনসুরকে পদক এবং মানপত্র প্রদান করেন।