ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:৩৩ ঢাকা, বুধবার  ২৩শে মে ২০১৮ ইং

আখেরি মোনাজাত
আখেরী মোনাজাতের ফাইল ফটো

৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি

আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শেষ হয়েছে।

বিশ্ব ইজতেমার মুরব্বি গিয়াস উদ্দিন জানান, রাজধানীর অদূরে টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব আজ সকালে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়েছে।

বাংলাদেশসহ মুসলিম উম্মাহ ও বিশ্ববাসীর শান্তি, ঐক্য ও ভ্রাতৃত্ববোধ কামনা এবং কোরান ও হাদিসের আলোকে জীবন পরিচালনার অভিপ্রায় ব্যক্ত করে লাখো মুসল্লিআখেরি মোনাজাতে অংশ গ্রহণ করেন।

সকাল ১০টা ২০ মিনিটে শুরু হয় আখেরি মোনাজাত। প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বেও বাংলা ভাষায় মোনাজাত করা হয় । মোনাজাত পরিচালনা করেন বিশ্ব তাবলিগ জামাতের সূরা সদস্য ও ঢাকার কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ জোবায়ের। প্রায় ২৫ মিনিট ধরে মোনাজাত হয়। সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে আখেরি মোনাজাত শষ হয়।

দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতে সরাসরি সম্প্রচারের মাধ্যমে বঙ্গভবন থেকে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ অংশ নিয়েছেন। প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকারের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহণ করেন।

টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমার মূল মঞ্চে মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আলহাজ্ব এড. আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, মো. আখতারুজ্জামান, গাজীপুর জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, পুলিশ সুপার মো. হারুন-অর-রশিদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব এড. আজমত উল্ল¬াহ খান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, কে এম রাহাতুল ইসলাম, বিএম এর সভাপতি আমির হোসেন রাহাত, সির্ভিল সার্জন মঞ্জুরুল হকসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ।

এর আগে সকাল পৌনে ৮টা থেকে বাংলায় হেদায়তি বয়ান করেন মাওলানা আব্দুল মতিন।

ইজতেমা ময়দানে দেশি বিদেশি মুসল্লিসহ মুসলিম উম্মাহর মাগফিরাত-নাজাত কামনা করে সকল মুসলমানদের ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যের এবং কোরান ও সুন্নার অলোকে জীবন পরিচালনার আহ্বান জানিয়ে মোনাজাত করা হয়।

আখেরি মোনাজাতে লাখো লাখো মুসল্লিরা আমিন আমিন ধ্বনিতে টঙ্গীর তুরাগ তীর ও আশপাশের এলাকা মুখরিত হয়ে উঠে। সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ ভাবে এবারের বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতে দেশের ১৪টি জেলার মুসল্লি¬সহ ২০ থেকে ২৫ লাখ মানুষ অংশ গ্রহণ করে বলে ধারণা করছে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজক কমিটি।

গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন-অর-রশিদ জানান, প্রথম পর্বের মতো দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ ভাবে শেষ হয়েছে।

তিনি জানান, এবছর ইজতেমা ময়দানে ৮ স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলা হয়। এবার প্রতিটি খিত্তায় সাদা পোশাকে ৬ জন করে পুলিশ দায়িত্ব পালন করেন। প্রায় সাড়ে ৭ হাজার পুলিশ ইজতেমা মাঠে দায়িত্ব পালন করেন। বিশ্ব তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বি মো. গিয়াস উদ্দিন আজ বাসসকে জানান, আগামী বছরের (২০১৯ সালের) প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমা শুরু হবে ১১ জানুয়ারি এবং তা শেষ হবে ১৩ জানুয়ারি। দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা ১৮ জানুয়ারি শুরু হয়ে তা ২০ জানুয়ারি শেষ হবে। – বাসস