Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:১২ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘৪৪ হাজার কোটি টাকার ৯ প্রকল্প একনেকে অনুমোদন’

পদ্মা সেতু হয়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশের সাথে রেল সংযোগ স্থাপনসহ ৯টি প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এসব প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৪ হাজার ১৬৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ১৯ হাজার ২৬৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকা ও প্রকল্প সাহায্য ২৪ হাজার ৭৪৯ কোটি ৫ লাখ টাকা। এছাড়া সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় হবে ১৫২ কোটি ২৪ লাখ টাকা।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেক বৈঠকে এসব প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পটি ঢাকা স্টেশন হতে শুরু হয়ে গেন্ডারিয়া-মাওয়া-পদ্মা সেতু (নির্মাণাধীন) হয়ে ভাঙ্গা জংশন সংযুক্ত করবে এবং ভাঙ্গা জংশন হতে কাশিয়ানী জংশন স্টেশন হয়ে পদ্মাবিলা জংশন হয়ে বিদ্যমান রুপদিয়া এবং সিঙ্গিয়া স্টেশনকে সংযুক্ত করবে।

তিনি জানান, ঢাকা-গেন্ডারিয়া সেকশনে ৩ কিলোমিটার ডাবল লাইনসহ প্রকল্পের আওতায় মোট ১৭২ কিলোমিটার নতুন মেইন লাইন নির্মাণ করা হবে। এর ফলে ঢাকা-যশোর, ঢাকা-খুলনা ও ঢাকা-দর্শনার মধ্যেকার দূরত্ব যথাক্রমে ১৮৪ দশমিক ৭২ কিলোমিটার, ২১২ দশমিক শুন্য ৫ কিলোমিটার এবং ৪৪ দশমিক ২৪ কিলোমিটার কমে আসবে এবং যাত্রা সময়ও কমে যাবে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৪ হাজার ৯৮৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে চীন সরকারের ঋণ ২৪ হাজার ৭৪৯ কোটি ৫ লাখ টাকা। এবং বাকী অর্থ সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় করা হবে।
প্রকল্পের আওতায় পদ্মা সেতু প্রকল্পের ওপর দিয়ে ঢাকা থেকে খুলনায় রেলপথের নতুন রুট নির্মাণ করা হবে।নতুন রেলপথ দিয়ে যাতায়াতে রাজধানী থেকে খুলনার দূরত্ব কমবে ২১২ কিলোমিটার। এ রেলপথ দিয়ে খুলনায় যেতে সময় লাগবে মাত্র সাড়ে তিন ঘন্টা। ২০১৬ থেকে ২০২২ মেয়াদে রেল বিভাগ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

এছাড়া আজকের একনেক বৈঠকে ৬ হাজার ২৫২ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের যাত্রাবাড়ী ইন্টারসেকশন থেকে (ইকুরিয়া-বাবু বাজার লিংক সড়কসহ) মাওয়া পর্যন্ত এবং পাঁচ্চর ভাংগা অংশে ধীর গতির যানবাহনের জন্য পৃথক লেনসহ ৪ লেনে উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়।
অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পসমূহ হলো- জাতীয় মহাসড়কের মাগুরা শহর অংশের রামনগর মোড় থেকে আবালপুর পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ প্রকল্প।এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৯১ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। এছাড়া এক হাজার ৮৯০ কোটি ৮৫ লাখ টাকা ব্যয়ে সিলেট বিভাগে বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

উপকূলী ও ঘূর্ণিঝড়প্রবণ এলাকায় বহুমুখী ঘূর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৩৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা। ৭৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রাণীরোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প (২য় পর্যায়) এবং উদ্যানতাত্ত্বিক ফসলের গবেষণা জোরদারকরণ এবং চর এলাকায় উদ্যান ও মাঠ ফসলের প্রযুক্তি বিস্তার প্রকল্প।এর ব্যয় ধরা হয়েছে ৭০ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় অধিকতর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প নেয়া হয়েছে ১৮৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

অনুমোদন পাওয়া বাংলাদেশ বেতারের মহাশক্তি প্রেরণ কেন্দ্র এক হাজার কিলোওয়াট মধ্যম তরঙ্গ ট্রান্সমিটার স্থাপন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৩ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।