ব্রেকিং নিউজ

রাত ৯:২৬ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

২৪ ঘণ্টারও কম সময়ে বিএনপি-জামায়াতের ৮০০ নেতাকর্মী আটক

নাশকতাসহ বিভিন্ন ধরনের মামলায় সারা দেশের বিভিন্ন জেলায় বিএনপি- জামায়াতের নেতাকর্মীসহ প্রায় ৮০০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে জামায়াত-শিবিরের ২৪ নেতাকর্মীসহ ৪৮১জনকে গ্রেফতার করেছে। শুক্রবার রাত এবং শনিবার জেলার বিভিন্ন উপজেলায় এই অভিযান চালানো হয়।এ সময় পুলিশ দুটি বিদেশী পিস্তল, একটি হালকা আগ্নেয়-অস্ত্র, ৬ রাউন্ড গুলি, ১৫শ ইয়াবা, ২৫২ লিটার তরল পানীয় এবং এক কিলোগ্রাম গাঁজা উদ্ধার করে। চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের স্পেশ্যাল ব্রাঞ্চের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ নাইমুল হাসান বলেন,পুলিশের কয়েকটি টিম এই অভিযান পরিচালনা করে। এসময় তারা ১৮ জামায়াত ও ৬ শিবির কর্মী,৩৬৪ পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করে। এছাড়া নিয়মিত মামলায় আরো ৮১জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১২ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত নগরীর কোতোয়ালী থানার আন্দরকিল্লা এলাকায় তল্লাশির মাধ্যমে যৌথ বাহিনীর এ অভিযান শুরু হয়। এসময় দেশীয় চোলাই মদ বহনের দায়ে নারীসহ দুজন এবং সন্দেহজনকভাবে আরো তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এরআগে গত ২৫ অক্টোবর থেকে সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় নগরজুড়ো কঠোর নিরাপত্ত বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে চেক পোস্ট ও টহল পুলিশের সংখ্যা। নগরীর সব সরকারি স্থাপনায় সার্বক্ষনিক পুলিশ মোতায়ন রয়েছে। বিশেষ করে বাস টার্মিনাল, রেল স্টেশন, গুরুত্বপূর্ণ সব সরকারি স্থাপনায় বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া পতেঙ্গায় অবস্থিত তেল স্থাপনাসহ কেপিআইগুলোতে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পুরো নগরীকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার কাজও শুরু করেছে সিএমপি। এরমধ্যে নতুন করে গত মঙ্গলবার থেকে সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে ডগ স্কোয়াড মোতায়ন করেছে বিজিবি। দুটি প্রশিক্ষিত ডগের সমন্বয়ে ১২ জন বিজিবি সদস্যের এ ডগ স্কোয়াড বিমান বন্দর দিয়ে আসা মাদকদ্রব্য ও বিস্ফোরক উদ্ধারে কাজ করছে। তারও আগে থেকে বিমান বন্দরে সাধারণ দর্শনার্থীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি এপিবিএনের প্রায় দুইশ বাড়তি ফোর্স মোতায়ন রয়েছে। যাত্রী প্রবেশ ও বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের সর্বোচ্চ সর্তকতার সাথে তল্লাশি করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে বন্দর নগরীকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলার দাবি করছে পুলিশ।

এদিকে গত বুধবার সাভারের আশুলিয়ায় চেক পোস্টে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে শিল্প পুলিশের কনেস্টেবল মুকুল মিয়া নিহত হওয়ার পর দেশজুড়ে নিরাপত্তা তল্লাশি জোরদার করার নির্দেশ দেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের প্রতি দেয়া হয় বিশেষ নির্দেশনা। এছাড়া তল্লাশির সময় শিথিলতা পরিহার করে যথাযত সাবধানতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে পুলিশ সদর দপ্তরের এক আদেশে। তল্লাশির সময় কমপক্ষে একজন অতিরিক্ত উপ কমিশনারকে (এডিসি) সেটি তদারকের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া পুলিশ সদস্যদের গুলিভর্তি অস্ত্র, বুলেট প্রুপ জ্যাকেট, হেলমেট ও ল্যাগ গার্ড পরিধান বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। প্রয়োজনে আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোঁড়ার বিষয়টিও নতুন করে মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে পুলিশ সদস্যদের। সিদ্ধান্তানুযায়ী, শুক্রবার বেলা ১২ টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত প্রায় দুঘন্টা ব্যাপী যৌথবাহিনী তল্লাশি শুরু করে। এসময় সড়কে চলাচলরত সন্দেহজনক লোকজনকে তল্লাশি করা হয়েছে। এছাড়া সন্দেহজনক গতিবিধির রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা, ও প্রাইভেট গাড়ী তল্লাশি করা হয়েছে। এমনকি আন্দরকিল্লা জামে মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে আসা মুসল্লিদেরও শরীর তল্লাশি করে মসজিদে প্রবেশ করতে দিয়েছে যৌথ বাহিনী। তল্লাশির সময় উদয়বড়ুয়া ও সাধনা ভট্ট নামে নারীসহ দুজনকে চোলাই মদসহ আটক করা হয়। একই অভিযানে সন্দেহজনক গতিবিধির কারণে আরো তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছেন কোতোয়লী থানার ওসি জসিম উদ্দিন। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) দেবদাস ভট্টাচার্য বলেন, বিদেশি হত্যাকাণ্ডের পর থেকে নগরীতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জারি ছিল। এরপর সন্ত্রাসী হামলার গোয়েন্দা তথ্য পাওয়ার পর নগরীতে এ নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে আরো কঠোর থেকে কঠোর করা হয়েছে। নগরীর প্রতিটি অলিতে-গলিতে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বগুড়া: বগুড়ার ডিবি পুলিশ জেলায় বিশেষ অভিযানে শুক্রবার রাতে ভাংচুর ও নাশকতা মামলায় ধুনট থানার জামায়াতের সাবেক আমীর হারুন অর রশিদ, শেরপুর থানার জামায়াতের সেক্রেটারী আজাহার আলীসহ ১৫ শিবিরের নেতাসহ ৭৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। ডিবির ওসি আমিরুল ইসলাম জানান, এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি দেশী পিস্তল, ৯ রাউন্ড গুলি, ১২টি ককটেল, ৩টি চাপাতি, ৩টি চাইনিজ কুড়াল, ২টি দেশীয় অস্ত্র, ৩০০ বোতল ফেন্সিডিল, ৮০ পিস ইয়াবা ও ১৬ পুড়িয়া হেরোইন উদ্ধার করা হয়। ফরিদপুর:বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার ফরিদপুর জামায়াতের ৩৭ নেতাকর্মী এবং বিএনপির ৩ কর্মীকে পুলিশ, র‌্যাব এবং বিজিবির যৌথ অভিযানে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আটক করা হয়েছে । পুলিশ জানায়, জেলার ভাঙ্গা, বোয়লমারি, সদর এবং নগরকান্দা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে স্থানীয় বিএনপি নেতাসহ জামায়াত শিবির নেতাকর্মীদের আটক করা হয়।কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা প্রতিরোধে এবং জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ রাখতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যাপকভাবে অভিযানের পদক্ষেপ নিয়েছে বলে পুলিশ জানায়। ফুলবাড়ীয়ায় জামায়াতের সাবেক পৌর আমির আব্দুল মজিদ মাস্টার গ্রেফতার। ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া উপজেলা জামায়াতের রাজনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক, সাবেক পৌর আমির সদরের আল-হেরা একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা শিক্ষক সমিতির (একাংশ) সভাপতি মো. আব্দুল মজিদ কে শনিবার বিকেল ৩.১৫ মিনিটে থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। থানা অফিসার ইনচার্জ রিফাত খান রাজিব জানান, তার বিরুদ্ধে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগ রয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে যৌথ বাহিনীর অভিযানে বিএনপি চাঁপাইনবাবগঞ্জ: চাঁপাইনবাবগঞ্জ পাঁচ উপজেলায় যৌথ বাহিনীর পৃথক অভিযানে বিএনপি ও জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীসহ ৩৭ জনকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত এই অভিযান চালানো হয়। পুলিশ সুপার বশির আহম্মেদ জানান, নাশকতার আশংকায় এবং বিভিন্ন নাশকতার মামলার আসামীদের ধরতে এই অভিযান চালানো হয়। আটক বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা বিরুদ্ধে আগের দায়ের করা মামলার আসামী বলেও জানান তিনি। ফোকাস বাংলা