শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১০:০৫ ঢাকা, রবিবার  ১৬ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

নমুনা ফটো

১৬ নয় মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ থাকছে

শীর্ষ মিডিয়া ১৮ অক্টোবর ঃ   অবশেশে মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ ও ছেলেদের বিয়ের বয়স ২১ রাখারই সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে সরকার।  বিগত ১৫ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিসভার বৈঠকে ছেলেদের বিয়ের বয়স কমিয়ে ১৮ ও মেয়েদের ১৬ করা যায় কি না, তা পরীক্ষা করে দেখার বিষয় আলোচিত হয় এবং ‘বাল্যবিবাহ রোধ আইন, ২০১৪’ অনুমোদন দেওয়া হয়।  যা  বাল্যবিবাহ রোধ আইন, ২০১৪’-এর সঙ্গে ‘শিশুনীতি ২০১৩’ সাংঘর্ষিক। জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ অনুসারে শিশু বিল ২০১৩-এ ১৮ বছরের কম বয়সী প্রত্যেককেই শিশু হিসেবে গণ্য করা হয়।
মহিলা পরিষদসহ বিভিন্ন নারী ও শিশু সংগঠন থেকেও সমালোচনা করে বলা হয়, মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ থেকে কমিয়ে ১৬ বছর করা একটি পরস্পরবিরোধী চিন্তা। একদিকে সরকার নারীর ক্ষমতায়নের কথা বলছে, অন্যদিকে বিয়ের বয়স কমানোর বিধান করতে চাইছে।

মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রনালয় সূত্র জানায়, ‘সব দিক বিবেচনা করেই আমাদের সিদ্ধান্ত দিতে হচ্ছে। আমরা মেয়েদের বিয়ের বয়স ১৮ ও ছেলেদের বিয়ের বয়স ২১ রাখারই চিন্তাভাবনা করছি। এখনো আইনটি চূড়ান্ত হয়নি। প্রয়োজনে এটি আবারও মন্ত্রিসভায় উত্থাপন করা হবে। এ ছাড়া মতামতের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে, সংসদীয় কমিটিতে যাবে। সব জায়গাতেই আলোচনা হবে।’ বাল্যবিবাহ একটি সামাজিক সমস্যা। আর বিচারের বিষয়টি অনেক দীর্ঘ প্রক্রিয়া। এ কারণে দ্রুত বিচার করতে এই আইনকে ভ্রাম্যমাণ আদালত আইনের তফসিলভুক্ত করা হচ্ছে।

উল্লেখ, গণমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর সমালোচনার মুখে পড়ে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়।  ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) মেয়েদের আইনসিদ্ধ বিয়ের ন্যূনতম বয়স না কমানোর জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।