ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৪৫ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

হামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার কোন বিকল্প নেই

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি মুক্তমনা লেখকদের ওপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক শক্তির প্রতি আহবান জানিয়েছেন।
তিনি আজ সকালে রাজধানীর ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির গোলটেবিল বৈঠক মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে ঐতিহাসিক জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দান কালে এ আহবান জানান।
জোটের সভাপতি চিত্রনায়ক ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি।
সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সুজিত রায় নন্দী, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফয়েজ উদ্দিন মিয়া, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ফাল্গুনী হামিদ, সহ-সভাপতি দিলারা ইয়াসমিন ও ড্যানী সিডাক।
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জম্ম হয়েছে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক চেতনার ভিত্তিতে এবং ধর্মভিত্তিক সাম্প্রদায়িক পাকিস্তানের বিরুদ্ধে।
তিনি বলেন, মুক্তমনা লেখকদের ওপর আঘাত হানা আর বাংলাদেশের ভিত্তিমূলে আঘাত হানার মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। আর সেজন্য গণতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক শক্তিকে ধর্মভিত্তিক সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করে দেশকে রক্ষা করতে হবে।
বন ও পরিবেশ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হাছান মাহমুদ বলেন, দু’বিদেশী নাগরিক হত্যা, হোসেনী দালানে তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলা ও গতকাল মুক্তমনা লেখকদের ওপর হামলা একই সূত্রে গাথাঁ।
গতকাল বিএনপির নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিবৃতির কথা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, বিএনপি নেত্রী এ ধরনের একটি বিবৃতি দেয়ার জন্যই সাম্প্রতিক সময়ের এ ঘটনাগুলো ঘটিয়েছেন।
ড. হাছান বলেন, বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের মধ্যে অনেক দল রয়েছে যাদের উদ্দেশ্য আর মুক্তমনা লেখকদের ওপর হামলাকারীদের উদ্দেশ্য এক ও অভিন্ন। যারা দেশকে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের মতো উগ্র মৌলবাদী রাষ্ট্র বানাতে চায়।
এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, জামায়াতকে বাদ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল গণতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক শক্তির মধ্যে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করে ধর্মভিত্তিক সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার কোন বিকল্প নেই।
তিনি বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার কথা বলেছেন। কিন্তু বিএনপির সাথে বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল রয়েছে যারা জঙ্গীবাদের পৃষ্ঠপোষক।
কামরুল বলেন, জঙ্গীবাদীদের সাথে আতাত করে জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা যায় না। কেননা জামায়াত জঙ্গীবাদের সাথে একাকার হয়ে গেছে।