ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:১৮ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

হরতাল-অবরোধের বিরুদ্ধে কর্মসূচি ঘোষণা

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, বেগম জিয়া যদি কথিত হরতাল- অবোরধ প্রত্যাহার না করেন তাহলে জনগণ তার সকল নাগরিক সবিধা বন্ধ করে দেবে।
তিনি বলেন, বেগম জিয়া গণতন্ত্রের নামে দেশব্যাপী জ্বালাও পোড়াও করছেন। মানুষ হত্যা করছেন। বাসে আগুন দিচ্ছেন। এ আগুনে তাকে জ্বলতে হবে।
মন্ত্রী আজ ঐতিহাসিক সোহরাওর্দী ময়দানে শ্রমিক-কর্মচারী- পেশাজীবী- মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত এক বিশাল মহাসমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে এ কথা বলেন। এতে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব) হেলাল মোর্শেদ খান, জাতীয় শ্রমিক জোটের সভাপতি শিরিন আখতার, নারী জোটের সভাপতি আফরোজা হক রীনা, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইসমত কাদির গামা,শ্রমিক নেতা সিরাজুল ইসলাম খান রণি, বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগের সভাপতি আলাউদ্দিন মিয়া প্রমূখ।
সভায় আগামী দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন নৌ-মন্ত্রী। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছেÑ বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ আগামীকাল ৩১ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে চলমান ২০ দলীয় জোটের আহূত অবরোধ ও হরতালে পেট্রোল বোমা, গান-পাউডারে পোড়া গাড়ির প্রতিকী নিয়ে বিক্ষোভ । আজকের মহাসমাবেশ থেকে সড়ক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ কর্তৃক আহূত কর্মসূচির প্রতি একাত্মতা ঘোষণা করা হয়।
৩ ফেব্রুয়ারি সকল জেলা শহরের শহীদ মিনারে শ্রমিক-কর্মচারীসহ সকল পেশার জনগণ, নারী ও মুক্তিযোদ্ধারা এবং সকল বাস ও ট্রাক টার্মিনালে মালিক ও শ্রমিকরা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, অবরোধ ও হরতালের নামে মানুষ হত্যা ইত্যাদির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে।
৫ ফেব্রুয়ারি বেলা ১২টা ৪৫মিনিটে থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত ১৫ মিনিটের জন্য সকল অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিল্প কারখানার মালিক ও শ্রমিক রাস্তায় নেমে আসবেন এবং ১৫ মিনিট রাস্তায় দাঁড়িয়ে চলমান হরতাল অবরোধের প্রতিবাদ জানাবেন।
৫ ফেব্রুয়ারি পৌনে ১টায় দেশের বাস, ট্রাক, ট্যাক্সি ও মেক্সি, হিউম্যান হলার, অটোরিক্সাসহ সকল সড়ক পরিবহন শ্রমিকদের নিয়ে সমাবেশ করা হবে।
লঞ্চ, স্টিমার, ফেরী, কার্গো, লাইটারেজ, অয়েল ট্যাঙ্কারসহ সকল নৌযানে এবং রেলগাড়ি ও মাল গাড়িসহ সকল প্রকারের যানবাহনের হর্ন দুই মিনিট পর্যন্ত একটানা বাজিয়ে চলমান অবরোধ ও হরতালের নামে শ্রমিক ও যাত্রীসহ অসংখ্য মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা ও যানবাহনসহ বিভিন্ন স্থানে ধ্বংসাত্মক এবং নাশকতা ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো হবে।
৫ ফেব্রুয়ারি বেলা পৌনে ১টায় সকল দোকান মালিক-কর্মচারী নিজ নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে দাঁড়িয়ে পাঁচ মিনিট পর্যন্ত বাঁশি বাজিয়ে প্রতিবাদ জানাবে।
৫ ফেব্রুয়ারি বেলা ১২.টা ৪৫ মিনিট হতে বেলা ১টা পর্যন্ত একটানা ১৫ মিনিট ক্ষেতে-খামারে কৃষকরা নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ জানাবে।
৭ ফেব্রুয়ারি, সকাল দশটায় মুক্তিযোদ্ধা ও সকল শ্রমিক-কর্মচারীসহ শ্রেণী, পেশা, নারী, ছাত্র, যুব সংগঠনের প্রতিনিধিদের জাতীয় কনভেনশন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে এবং এতে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।