ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:৪২ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২০শে এপ্রিল ২০১৮ ইং

হংকং-এর প্রধান নির্বাহী পদত্যাগ না করলে সরকারী ভবনগুলো দখল করতে শুরু করবে আন্দোলনকারীরা

শীর্ষ মিডিয়া ১ অক্টোবর ঃ  বৃহস্পতিবারের মধ্যে অঞ্চলটির প্রশাসনিক প্রধানকে পদত্যাগের সময় বেধে দিয়ে আন্দোলনকারীরা বলছেন, এর মধ্যে দাবি মেনে নেওয়া না হলে তারা সরকারী ভবনসমূহ দখল করে নেবেন।  বেইজিং সরকারের অনুমোদিত প্রার্থীদের মধ্য থেকেই হংকংয়ের পরবর্তী নেতা নির্বাচন করা হবে, এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিক্ষোভে নামে গণতন্ত্রকামীরা।

১৯৪৯ সালের এই দিনটিতেই কমিউনিস্ট চীনের আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ হয়েছিল।

আর চীনের এই ৬৫তম জাতীয় দিবস উদযাপনের মুহূর্তে হংকংসহ পুরো চীন জুড়েই সরকারি ছুটি চললেও আজও শহরের রাস্তায় অবস্থান নিয়ে একইধরনের বিক্ষোভ করছিলেন গণতন্ত্র পন্থীরা।

একটি অবাধ নির্বাচনের মাধ্যমে হংকংয়ের পরবর্তী নেতৃত্ব নির্ধারণ করতে চায় গণতন্ত্র পন্থী বিক্ষোভকারীরা।

কিন্তু বেইজিং সরকার চাইছে, তাদের অনুমোদিত প্রার্থীদের মধ্য থেকেই পরবর্তী নেতৃত্ব বেছে নিক হংকং-এর অধিবাসীরা।

তবে, বেইজিং-পন্থীদের একজন আইনপ্রণেতা স্টারি লি বিবিসিকে বলছিলেন, বিক্ষোভকারীদের দাবী অবাস্তব।

তিনি বলছিলেন যে, “তিনি মনে করেন হংকং এখন খুব কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছে কারণ আন্দোলনকারীদের দাবী বা অনুরোধ তার কাছে খুবই অবাস্তব মনে হচ্ছে”।

জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে আজ চীনের জাতীয় সঙ্গীত বাজানোর সময় ব্যঙ্গ-বিদ্রূপও প্রদর্শন করছিলেন বেশকিছু বিক্ষোভকারী।

হংকং-এর প্রধান চারটি সংযোগ-স্থলেই এখন অবস্থান নিয়েছে হাজারও আন্দোলনকারী ।

বিক্ষোভকারীদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবারের মধ্যে হংকং-এর প্রধান নির্বাহী সি ওয়াই লেয়ুং পদত্যাগ না করলে সরকারী ভবনগুলো দখল করতে শুরু করবেন তারা।

এ প্রসঙ্গে বিক্ষোভকারীদের একজন নেতা চান কিনম্যান বলছিলেন, মিস্টার লেয়ুং-এর পদত্যাগই এর একমাত্র সমাধান।

তিনি বলছিলেন যে, যখন থেকে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে তিনি ৩টি সংস্থার প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। এবং এতে সৃষ্ঠ অসুবিধার জন্য ক্ষমা চাইছেন তারা।

তবে কেবলমাত্র সি লেয়ং পদত্যাগ করলেই এই সমস্যা সমাধান হবে।

তবে এসব প্রতিবাদ-বিক্ষোভকে অবৈধ বলে বর্ণনা করে পদত্যাগ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন হংকং-এর প্রধান নির্বাহী সি ওয়াই লেয়ুঙ।সূত্র বিবিসি