যুক্তরাষ্ট্র সোমবার বলেছে, তারা হংকংকে চীন থেকে আলাদা অর্থনৈতিক কেন্দ্র হিসেবে বিবেচনা করছে না এবং হংকংয়ের কাছে যুক্তরাষ্ট্র আর সংবেদনশীল সামরিক সরঞ্জাম রফতানি করবে না।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, হংকংয়ের আন্দোলনকারীদের ব্যাপারে চীন যে নিরাপত্তা আইন পাস করছে এতে এই নগরীর স্বাধীনতা থাকবে না। চীনের এমন পদক্ষেপের প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র এই ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে।

পম্পেও এক বিবৃতিতে বলেন, “এ অবস্থায় আমরা বিশেষ নিয়ন্ত্রিত সামরিক সরঞ্জাম হংকং অথবা চীনের মূল ভূখন্ডে রফতানি করতে পারিনা।”

চীনা কমিউনিস্ট পার্টিকে (সিসিপি) উদ্দেশ্য করে পম্পেও বলেন, “এ ধরণের অস্ত্র পিপলস লিবারেশন আর্মির হাতে যাক সেই ঝুঁকি আমরা নিতে পারি না।

লিবারেশন আর্মির লক্ষ্য হলো, যে কোন মূল্যে সিসিপি’র স্বৈরতন্ত্র টিকিয়ে রাখা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় অত্যাধুনিক গোলাবারুদ ও নিয়ন্ত্রিত সামরিক সরঞ্জাম হংকংয়ে রফতানি বন্ধ করবে এবং এ ব্যাপারে ইতোমধ্যেই প্রশাসন ও কংগ্রেসের সবুজ সংকেত পাওয়া গেছে।

হংহংয়ে অনেক মার্কিন নাগরিকের ব্যাপারে চীনের ভিসা কড়াকড়ির পরে পম্পেও এই ঘোষণা দেন।