Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:১৩ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

আসাদুজ্জামান নুর
সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর, ফাইল ফটো

স্বাধীনতার অর্জনকে নস্যাৎ করতেই জঙ্গী হামলা : সংস্কৃতি মন্ত্রী

সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি বলেছেন, মহান শহীদ দিবস শুধু একটি দিবস নয়, এটি বাঙালীর চেতনা ও বিশ্বাস। তিনি বলেন, এ বিশ্বাস ও চেতনাকে ধারণ করেই বাঙালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতা অর্জন করেছে। তিনি আরো বলেন, এ চেতনা ও অর্জনকে নস্যাৎ করতেই একটি গোষ্ঠী পাকিস্তানের সাথে হাত মিলিয়ে জঙ্গী হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।
আজ আন্ত:মন্ত্রণালয়ের এক বৈঠকে সংস্কৃতি মন্ত্রী এ কথা বলেন। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে শিল্পকলা একাডেমির সভাকক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
এতে সংস্কৃতি সচিব আকতারী মমতাজ, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মসিউর রহমান, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান, শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সৈয়দ রেজাউর রহমান, গ্রন্থগার অধিদপ্তরে মহাপরিচালক আশীষ কুমার সরকার, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের পরিচালক রেজাউল করিম, সোনারগাঁওয়ের লোক কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের পরিচালক কবি রবীন্দ্র গোপসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
যথাযথ ভাবগাম্ভির্যের মধ্যদিয়ে আগামী শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করার আহবান জানিয়ে সংস্কৃতি মন্ত্রী নূর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও একুশের গ্রন্থমেলাসহ পুরো বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা এবং রাজধানী ঢাকাসহ দেশের সর্বত্র কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংশ্লিষ্ট বিভাগকে নির্দেশ দেন।
তিনি বলেন, ধর্মের নামে একটি গোষ্ঠী জঙ্গী হামলা চালিয়ে ব্লগার, ধর্ম যাজক, পুলিশ ও প্রকাশকসহ মুক্তবুদ্ধির মানুষদের হত্যা করছে। ভাষা আন্দোলনের চেতনাকে ধারণ করে এই জঙ্গী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
ক্ষোভ প্রকাশ করে সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকরের পর যখন পাকিস্তানীদের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে দেশের কেউ কেউ শহীদের সংখ্যা ও বুদ্ধিজীবীদের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেন, তখন দুঃখ হয়। তিনি তাদের বিরুদ্ধেও প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান জানিয়েছেন।
অন্যান্যবার যেভাবে ২১শে ফেব্রুয়ারি, মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করা হয়, এবারও সেভাবে বা তার চেয়েও আরো উৎকৃষ্টভাবে দিবসটি পালনের জন্য মন্ত্রী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের প্রতি নির্দেশ দেন।