Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:৩৮ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

স্বল্প সুদে ঋণ পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী বাংলাদেশ

বিশ্ব ব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) বিকল্প হিসেবে প্রস্তাবিত চীনভিত্তিক এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংকের (এআইআইবি) প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য হতে চূড়ান্ত চুক্তিতে সই করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।
আগামী ২৯ জুন চীনের বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিতব্য এই চুক্তিতে দেশের পক্ষে সই করবেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। চুক্তিতে সই করতে প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল ২৭ জুন বেইজিংয়ের উদ্দেশ্য রওনা হবেন।
এআইআইবির সাথে বাংলাদেশ যুক্ত হওয়ার প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘কেবলমাত্র অবকাঠামোখাতের উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়ে এআইআইবি গঠিত হয়েছে। আমাদেরও সেতু, রেল, সড়কসহ অবকাঠামোখাতে উন্নয়নের অনেক প্রয়োজন রয়েছে।সেই তাগিদেই আমরা নবগঠিত এই ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য হতে যাচ্ছি।’
তিনি বলেন, দেশের অবকাঠামো খাতের উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক ও এডিবির মতো বহজাতিক উন্নয়ন ব্যাংকের কাছ থেকে আমরা স্বল্প সুদে ঋণ নিয়ে থাকি।এটি আমাদের উন্নয়ন ব্যয়ের অর্থসংস্থানের অন্যতম কৌশল। এআইআইবির সাথে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে স্বল্প সুদে ঋণ পাওয়ার আর একটি নতুন উৎসের সৃষ্টি হচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, এআইআইবিতে যুক্ত হওয়ার ফলে বিশ্বব্যাংক বা এডিবির সাথে আমাদের সম্পর্কের কোন ঘাটতি হবে না। বরং দেশের অবকাঠামোখাতের উন্নয়নে এক নবদিগন্ত উন্মোচিত হবে। এর মাধ্যমে স্বল্প সুদে ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য বড় সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
চুক্তি সইয়ের বিষয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) তৈরি করা এআইআইবির ‘আর্টিকেল অব এগ্রিমেন্ট’ কার্যপত্রের তথ্যমতে, ব্যাংকের অনুমোদিত মূলধন ধরা হয়েছে ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে বাংলাদেশকে ৬৬ কোটি ৫ লাখ ডলার পরিশোধ করতে হবে, যা মোট মূলধনের শূন্য দশমিক ৬৭ শতাংশ।
এর মধ্যে শেয়ারের বিপরীতে ২০ শতাংশ অর্থাৎ ১৩ কোটি ২১ লাখ ডলার সমান পাঁচ কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে। আর এই পরিমাণ মূলধনের জন্য বাংলাদেশ মোট নয় হাজার ৬৩৫টি ভোটের মালিক হবে, যা মোট ভোটারের শূণ্য দশমিক ৮৩ ভাগ।
২০১৫ সালের এপ্রিল পর্যন্ত সম্ভাব্য সদস্য দেশের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৭টি। অনুমোদিত ১০০ কোটি ডলারের মূলধনের মধ্যে চীন একাই অর্ধেক দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।
এশিয়া অঞ্চলের অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে ২০১৩ সালে এশীয় প্যাসিফিক ইকোনমিক কো-অপারেশন সামিটে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এ ব্যাংক গঠনের ঘোষণা দেন।
এরপর আলোচনার এক পর্যায়ে গত বছরের অক্টোবরের শেষে এআইআইবি প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশসহ ২২টি এশীয় দেশ একটি সমঝোতা স্মারকে (এমওইউ) সই করে।
সমঝোতা অনুযায়ী ব্যাংকটির সদর দফতর বেইজিংয়ে স্থাপন এবং বহুপক্ষীয় অন্তর্বর্তীকালীন সচিবালয়ের মহাসচিব হিসেবে জিন লিকুনকে নিয়োগের সিদ্ধান্ত হয়।
উল্লেখ্য, এশিয়ার বিভিন্ন দেশ ও ইউরোপের সঙ্গে স্থলপথের সংযোগ স্থাপন এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে অর্থায়ন করাই হবে এআইআইবির প্রধান লক্ষ্য।