ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৭:১৭ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা: স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

আলোচিত ইডেন কলেজ ছাত্রী শরিফা খানম পুতুল হত্যা মামলায় স্বামী মাহমুদ শিকদারের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার সকালে বাগেরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. মিজানুর রহমান খান এই রায় ঘোষণা করেন।

২০১৩ সালের ১৩ মে  রাতে স্বামীর দায়ের কোপে নিহত হন ঢাকা ইডেন কলেজের ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী শরীফা খানম পুতুল।

২০১২ সালের ডিসেম্বরে প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে মাহমুদ ও পুতুল অভিভাবকদের অমতে বিয়ে করেন। অবশ্য ২০১৩ সালের ১০ মে পারিবারিক আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে উভয় পরিবার তাদের বরণ করে নিয়েছিল।

এর মাত্র তিনদিনের মাথায় ১৩ মে রাতে পুতুল তার ফুফাত ভাইয়ের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলাকে কেন্দ্র করে মাহমুদার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে পুতুলকে দা’ দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী মাহমুদ।
এরপর ওই রাতেই খুনি মাহমুদ শিকদার নিজে মোল্লাহাট থানায় গিয়ে তার স্ত্রীকে জবাই করে হত্যার কথা স্বীকার করে।

এ ঘটনায় নিহত শরীফা খানম পুতুলের বাবা আবু দাউদ শেখ বাদী হয়ে মোল্লাহাট থানায় পরদিন জামাতা মাহমুদ শিকদারকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করে।

পরে ওই বছরের ১০ নভেম্বর বাগেরহাটের মোল্লাহাট থানার ওসি আনম খায়রুল আলম আলোচিত এ হত্যা মামলার একমাত্র  আসামি মাহমুদ শিকদারকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

আদালতে বিচার চলাকালে এ হত্যা মামলায় ১৪ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহণ করে।

তবে আলোচিত এ হত্যা মামলায় ফাঁসির দন্ডাদেশ প্রাপ্ত একমাত্র আসামি নিহত পুতুলের স্বামী মাহমদু শিকদার আদালত থেকে জামিন নেয়ার পর থেকে পলাতক রয়েছে।