Press "Enter" to skip to content

স্কুলের রিপোর্ট কার্ড ‘শিশু নির্যাতন’ বাড়ায়

এক গবেষণায় দেখা গেছে, শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার স্কুলগুলোতে শিক্ষার্থীদের রিপোর্ট কার্ড দেয়া হলে শনিবার শিশুদের উপর শারীরিক নির্যাতনের ঘটনা বেড়ে যায়।

এসব নির্যাতিত শিশুর দেহে ভয়াবহ নির্যাতনের ছাপ দেখা গেছে৷ যেমন, হাড় ভাঙা, আগুনের ছ্যাঁকা দেয়া ইত্যাদি৷ ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানী মেলিসা ব্রাইট বলেন, ‘‘আমরা দেখেছি, স্কুলে যেসব শিশু ভালো ফলাফল করে না, তাদের বাবা-মা তাদের কঠোর শাস্তি দেয়৷”

চলতি সপ্তাহে এ সংক্রান্ত একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ‘জামা পেডিয়াট্রিক্স’৷ সেখানে বলা হয়েছে, ২০১৫ থেকে ২০১৬ শিক্ষাবর্ষে ফ্লোরিডার ৬৭ কাউন্টিতে স্কুলের রিপোর্ট কার্ড দেয়ার পর শিশুদের শারীরিক নির্যাতনের ২০০০টি ঘটনা সম্পর্কে জানা গেছে৷ ঘটনাগুলো স্কুল কর্তৃপক্ষকে হটলাইনে ফোন করে জানানো হয়েছিল৷ নির্যাতিত শিশুদের বয়স ৫ থেকে ১১ বছরের মধ্যে৷

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার যদি রিপোর্ট কার্ড দেয়া হয়, সেক্ষেত্রে শনিবারে শারীরিক নির্যাতনের হার প্রতি এক লাখ শিশুর মধ্যে শতকরা দশমিক ৬ ভাগ৷ অন্যদিনগুলোতে নির্যাতনের হার দশমিক ২ ভাগ৷

ফ্লোরিডায় স্কুলে যায় ৩০ লাখ শিশু৷ গবেষকরা বলছেন, যে শিশুরা ভালো গ্রেড পেয়েছে, তারাও শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে৷ কারণ, বাবা-মা ধরে নিয়েছে পরের দিন রোববার৷ তাই স্কুলে গিয়ে সে কাউকে জানাবে না বা শরীরের দাগ দেখা যাবে না৷ গবেষকরা অবশ্য বলছেন, ৯০-এর দশকের তুলনায় বর্তমানে এই নির্যাতনের হার অনেক কম৷

বস্টনের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. রবার্ট সেগে মনে করেন, যদি রিপোর্ট কার্ড দেয়ার দিনটি পরিবর্তন করা হয়, তবে হয়ত শিশু নির্যাতনের ঘটনা কমবে৷ -ডি ডব্লিউ

শেয়ার অপশন: