ব্রেকিং নিউজ

রাত ১:৫৮ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

সৌদিতে শিগগিরই শ্রম বাজার উন্মুক্ত হবে

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন। আপনাদের সহযোগিতা আমাদেরকে অনুপ্রানিত করবে।

 

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, শিগগিরই সৌদি আরবে বাংলাদেশের শ্রম বাজার উন্মুক্ত হবে এবং সেদেশে ব্যাপক হারে কর্মী পাঠানো সম্ভব হবে। তিনি আজ সংসদে জাসদের নাজমুল হক প্রধানের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।
সরকারি দলের সদস্য বেগম রহিমা আখতারের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে ১৬০টি দেশে কর্মী পাঠানো হচ্ছে। যেখানে বিগত ৪ দলীয় জোট সরকারের আমলে বিশ্বের ৯৭টি দেশে বাংলাদেশ থেকে কর্মী পাঠানো হত। ৪ দলীয় জোট সরকারের আমলে যেখানে ৫ বছরে ১৩ লাখ ৫৩৭ জন কর্মী বিদেশে পাঠানো হয়েছে, সেখানে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও বর্তমান সরকারের আমলে গত ৫ বছরে ২৪ লাখ ৫১ হাজার ৯৩ জন কর্মী বিদেশে পাঠানো হয়েছে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক-নির্দেশনায় শ্রম বাজার উন্মুক্তকরণের জন্য নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালে বর্তমান সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের আগে বিগত ৪ দলীয় জোট সরকারের সময় জনশক্তি পাঠানো খাতে মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য, সীমাহীন দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মী পাঠানো জটিলতা সৃষ্টি হয় এবং কয়েকটি শ্রম বাজার প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর এ সব বন্ধ শ্রম বাজার উন্মুক্তকরণের জন্য নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী দিক-নির্দেশনা এবং সফল শ্রম কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলশ্র“তিতে ৪ দলীয় জোট সরকারের সময় মালয়েশিয়াসহ বন্ধ হয়ে যাওয়া শ্রম বাজারগুলো পুনরায় চালু হয়।
প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের সময় প্রতিবছর কর্মী পাঠানো হয়েছে গড়ে প্রায় ৫ লাখ এবং ৪ দলীয় জোট সরকারের সময়ে যা ছিল গড়ে মাত্র আড়াই লাখ। এছাড়া বর্তমান সরকারের আমলে গত ৫ বছরে রেমিট্যান্সের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৬১ দশমিক ৯০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। যেখানে বিগত ৪ দলীয় জোট সরকারের সময় রেমিট্যান্সের পরিমাণ ছিল মাত্র ১৮ দশমিক ৩৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।
তিনি বলেন, সারা বিশ্বে চরম অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও বর্তমান সরকারের বিগত ৫ বছরে বিদেশে পাঠানো কর্মীর সংখ্যা বিগত জোট সরকারের সময়ে উচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি থাকা সত্ত্বেও বিদেশে পাঠানো কর্মী সংখ্যার তুলনায় দ্বিগুণ বেশি এবং রেমিট্যান্স বৃদ্ধির পরিমাণ তিন গুণেরও বেশি হয়েছে। ২০১৪ সালে বিদেশে পাঠানো কর্মীর সংখ্যা ৪ লাখ ২৫ হাজার ৫৪৭ জন এবং অর্জিত রেমিট্যান্স ১৪ দশমিক ৯২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা জাতীয় অর্থনীতিতে জিডিপি’র ১১ শতাংশের বেশি।
বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক প্রচেষ্টা ও দূরদর্শী দিক-নির্দেশনা এবং এ মন্ত্রণালয়ের ব্যাপক শ্রম কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলে ইতোপূর্বে মালয়েশিয়ায় ২ লাখ ৬৬ হাজার, সৌদি আরবে প্রায় ৮ লাখ অবৈধ বাংলাদেশী কর্মীকে বৈধকরণের আওতায় আনা সম্ভব হয়।
তিনি বলেন, সরকারের সরাসরি তত্ত্বাবধায়নে সরকারিভাবে মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, হংকং ও জর্ডানে কর্মী পাঠানো হচ্ছে। মালয়েশিয়ায় এ পর্যন্ত প্রায় ৭ হাজার জন, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১১ হাজার ৬৭৭ জন, হংকংয়ে ৮২৫ জন এবং জর্ডানে ৩২৯ জন কর্মী গমন করেছে। উল্লেখিত দেশগুলো থেকে চাহিদা প্রাপ্তি সাপেক্ষ চলতি অর্থবছরেও সরকারিভাবে কর্মী পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে।