Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:১৯ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

সোনালী ব্যাংকে বড় ধরণের ডাকাতি, বেসিক ব্যাংকে উচ্চ পর্যায়ের লুট: অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকে বড় ধরণের ডাকাতি ও জালিয়াতি হয়েছে। বেসিক ব্যাংকের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা লুট করার  চেষ্টা করেছে। ব্যাংক দুটি ঠিক করতে যথেষ্ট বেগ পেতে হচ্ছে। এ দুরাবস্থা কাটিয়ে উঠতে সময় লাগবে বলেও জানান তিনি। বুধবার সকালে রাজধানীর একটি  হোটেলে জনতা ব্যাংক লিমিটেডের বার্ষিক সম্মেলন-২০১৬ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।
অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থার কারণে সরকারি ব্যাংকগুলো ভাল অবস্থানে নেই বলে মন্তব্য কর অর্থমন্ত্রী জানান, রাষ্ট্রায়াত্ব সোনালী ও বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেংকারির ক্ষত এখনো কাটিয়ে উঠতে পারিনি। সোনালী ও বেসিক ব্যাংকে যেসব অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে এর খেসারত এখনো দিতে হচ্ছে।
দেশে ৫৬টি ব্যাংক থাকলেও ব্যাংকিং সেবা এখনো মানুষের দোড়গোড়ায় পৌঁছেনি বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। অর্থমন্ত্রী বলেন, আর্থিকভাবে  দেশকে স্বাবলম্বী করতে হলে সব ধরনের ব্যাংকিং সেবা সব মানুষের  দোড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে হবে। রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ও বেসিক ব্যাংকে আর্থিক কেলেঙ্কারির ঘটনায় যে ক্ষতি হয়েছে, তা কাটিয়ে উঠতে বেগ পেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।
ব্যাংকিং  সেবা মানুষের  দোরগোড়ায়  পৌঁছেনি জানিয়ে মুহিত বলেন, অনেকে বলে দেশে ব্যাংক  বেশি হয়ে  গেছে। কিন্তু, ১৬ কোটি মানুষের  দেশে ব্যাংকের ৯ হাজার শাখা তেমন কিছুই না। মন্ত্রী বলেন,  দেশে ৫৬টি ব্যাংক থাকলেও ব্যাংকিং  সেবা এখনো মানুষের দোরগোড়ায়  পৌঁছেনি। আর্থিকভাবে দেশকে স্বাবলম্বী করতে হলে সব ধরণের ব্যাংকিং  সেবা সব মানুষের  দোরগোড়ায়  পৌঁছে দিতে হবে।
জনতা ব্যাংক সম্পর্কে তিনি বলেন, আর্থিক সূচকে জনতা ব্যাংক অন্য রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর থেকে যথেষ্ট ভালো করছে। ভালো মুনাফা অর্জন করছে। অনুষ্ঠানে জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী আব্দুস সালাম ব্যাংকের আর্থিক সূচক তুলে ধরে স্বাগত বক্তব্য  দেন।
ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান শেখ ওয়াহিদ উজ-জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব ড. এম আসলাম আলম, ব্যাংকের সিইও ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুস সালাম প্রমুখ। ফোকাস বাংলা।