ব্রেকিং নিউজ

রাত ৯:০৪ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৩শে অক্টোবর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

সৈয়দ আশরাফকে নিয়ে সৃষ্ট সঙ্কট থাকছেনা!

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দপ্তরবিহীন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গতকাল বুধবারও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন। এটা ছিল টানা চতুর্থ দিনের মতো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার একান্ত বৈঠক। তবে বৈঠকের বিষয়বস্তু জানা না গেলেও সূত্র জানায়, নানা কারণে দপ্তরবিহীন মন্ত্রী করলেও সৈয়দ আশরাফকে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বেই রাখতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঈদের পরেই সৈয়দ আশরাফ গুরুত্বপূর্ণ পদে যাচ্ছেন বলে আওয়ামী লীগে জোর গুঞ্জন চলছে। আর এ গুঞ্জন এখন সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়েছে। খুব সম্ভব পররাষ্ট্রমন্ত্রী করা হতে পারে সৈয়দ আশরাফকে।

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানিয়েছে, প্রবল ব্যক্তিত্বের অধিকারী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আগামীতে লোভনীয় যে কোন পদ নিতে রাজি হবেন কি না, এ নিয়ে সন্দিহান আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকরাই। তবে বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলামের মতোই দলীয় প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে কোন নির্দেশ সকল প্রকার লোভ-লালসা, পদ-পদবীর ঊর্ধ্বে থেকে বিশ্বস্ততার সঙ্গে পালনে প্রস্তুত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গত চার দিনের বৈঠকে তা প্রমাণ দিয়েছেন সৈয়দ আশরাফ।

জানা গেছে, ঈদের পর আওয়ামী লীগের এই সাধারণ সম্পাদককে গুরুত্বপূর্ণ একটি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দেখা যেতে পারে। সেটি রাজি না হলে জাতীয় সংসদের উপনেতা করারও দাবি উঠেছে খোদ দলের মধ্য থেকেই। অতিভক্ত দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের অনেকেই প্রয়োজনে সংবিধান সংশোধন করে সৈয়দ আশরাফকে প্রয়োজনে উপ-প্রধানমন্ত্রী করার দাবি জানালেও সেটির পক্ষে নীতি-নির্ধারক মহলে তেমন সাড়া পাওয়া যায়নি। নানা মহলে এ গুঞ্জনের বিষয়ে যোগাযোগ করে সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া না গেলেও সবাই একবাক্যে বলছেন, ঈদের পর সৈয়দ আশরাফকে নিয়ে সৃষ্ট সঙ্কটের সমাধান হবে। উপনেতা না হলেও হয়তো পররাষ্ট্রমন্ত্রী করা হতে পারে সৈয়দ আশরাফকে।