ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:০৩ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ

‘সুযোগ পেলে লাখ লাখ লোককে হত্যা করবে বিএনপি’

বিএনপি যদি আবার সুযোগ পায়, তবে লাখ লাখ লোককে হত্যা করবে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

মন্ত্রী আজ রোববার দুপুরে ভোলা সরকারি কলেজে জাতীয় শোক দিবসের এক আলোচনা সভায় তরুণ ছাত্রসমাজের উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর পারভিন আক্তার সভায় সভাপতিত্ব করেন।

তোফায়েল বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু জীবনের ৪ হাজার ৬৮২ দিন কারাবরণ করেছেন। পাকিস্তানীরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করতে পারেনি, করেছে খুনি মোস্তাক-জিয়া।

তিনি বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে জিয়াউর রহমান তাদেরকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে চাকরি দিয়েছে। জিয়ার স্ত্রী খালেদা জিয়া খুনিদের জাতীয় সংসদের সদস্য করেছে। আর স্বাধীনতা বিরোধী নিজামী, মুজাহিদদের গাড়িতে তুলে দিয়েছে পতাকা।

তোফায়েল বলেন, ‘কিছুদিন আগে নিস্পাপ ছাত্ররা নিরাপদ সড়কের জন্য আন্দোলন করেছিলো। আমি ব্যাক্তিগতভাবেও তাদের সমর্থন করেছি। সেই ছাত্র আন্দোলনকেও বিএনপি দলীয়করণ করার চেষ্টা করেছে। বিএনপি নিজেরা এখন আন্দোলন করতে পারেনা।’

তিনি বলেন, ২০০১ সালের ১ অক্টোবরের নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগের সকল নেতা-কর্মীর উপর বিএনপি ভয়াবহ অত্যাচার করেছে। তখন তারা বলত একটা আওয়ামী লীগ পিটাবা ২ টন গম পাবা। মায়ের সামনে মেয়েকে ধর্ষন করেছে তারা।

বাণিজ্যমন্ত্রী তরুণ ছাত্রসমাজের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমাদের এখনই সিদ্ধান্ত নিতে হবে, বিএনপি যদি আবার সুযোগ পায়, তবে লাখ লাখ লোককে হত্যা করবে। তাই স্বাধীনতার চেতনা, মূল্যবোধ বুকে ধারণ করে আগামী নির্বাচনের জন্য কাজ করতে হবে।

এর আগে মন্ত্রী কলেজ চত্বরে একটি বিজ্ঞান ভবন, বাণিজ্যিক ভবন, প্রশাসনিক ও হোস্টেল ভবনের উদ্বোধন করেন। পরে তিনি ছাত্রদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে কলেজের একটি হোস্টেল ও অডিটরিয়াম নির্মাণের ঘোষণা দেন।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী পত্নী আনাওয়ারা আহমেদ, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোশারেফ হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ মো. ইউনুছ মিয়া, জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম নকিব, সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব বক্তব্য দেন। –বাসস

পরে মন্ত্রী সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে মাধ্যমিক ও দাখিল পর্যায়ের ২৬৭ জন মেধাবী দরিদ্র শিক্ষার্থীর মধ্যে বৃত্তি প্রদান করেন।