ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:২১ ঢাকা, শুক্রবার  ২০শে এপ্রিল ২০১৮ ইং

সিরিয়ার কোবানি থেকে পালাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ

শীর্ষ মিডিয়া ৭ অক্টোবর ঃ  ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা যাতে সিরিয়ার কোবানি শহর দখল করে নিতে না পারে, সেজন্যে তাদের বিভিন্ন অবস্থান লক্ষ্য করে আজ মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট আরও কিছু বিমান হামলা চালিয়েছে।

তুরস্ক সীমান্তের কাছে এই শহরটির কুর্দি যোদ্ধারাও ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অংশ নিচ্ছে।

প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে শহরটি অবরোধ করে রাখার পর গতকাল ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা এর উপকণ্ঠে ঢুকে পড়েছিল। শহরের অনেক মানুষ ইতোমধ্যে পালিয়ে গেছে, এবং বাকী বেসামরিক লোকজনকে সেখান থেকে সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা চলছে।

তুরস্কের সাথে সীমান্তবর্তী শহর কোবানি।

কুর্দি অধ্যুষিত এই শহরটি দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ইসলামিক স্টেটের জঙ্গিরা।

তাদের প্রতিরোধ করার চেষ্টা করছে কুর্দি যোদ্ধারা।

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে একটি আন্তর্জাতিক জোট এই আই এসকে লক্ষ্য করে বিমান থেকে আক্রমণ করছে।

কিন্তু তারমধ্যেও শহরের চারপাশে উড়ছে আই এসের কালো পতাকা।

সংবাদদাতারা বলছেন, মনে হচ্ছে কুর্দি যোদ্ধাদের গোলাবারুদ ফুরিয়ে গেছে। তারা বলছে, আন্তর্জাতিক জোট খুব সামান্যই হামলা করেছে। এবং তারা খুব বেশি দেরি করে ফেলেছে।

কোবানির এই লড়াইকে দেখা হচ্ছে ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়াই ও কৌশলের গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা হিসেবে।

কারণ এই শহর দখল করতে পারলে ইসলামিক স্টেটের জঙ্গিরা সিরিয়া ও তুরস্কের মধ্যে বিস্তৃত এক সীমান্ত এলাকার ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে পারবে।

সবশেষ খবরে বলা হচ্ছে, ইসলামিক স্টেট ধাপে ধাপে সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

হাজার হাজার বেসামরিক লোকজনকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে শহর থেকে। এখনও পর্যন্ত পালিয়ে গেছে দেড় লাখেরও বেশি মানুষ।

এই যুদ্ধে আন্তর্জাতিক সাহায্য চায় কুর্দি যোদ্ধারা। কিন্তু কোত্থেকে?

কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদী লড়াইয়ের কারণে এই যোদ্ধাদের সাহায্য করার ব্যাপারেও তুর্কী সরকার দ্বিধাগ্রস্ত।

আর সেকারণে তুরস্কের সামরিক বাহিনী এখনও পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে।

শর্ত হিসেবে তারা বলছে যে, সিরিয়ায় প্রেসিডেন্ট আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক জোটকে তার লড়াই আরো তীব্র করতে হবে। খবর বিবিসির