শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:০৭ ঢাকা, শনিবার  ১৫ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

সিরিজে সমতা আনলো বাংলাদেশ

মাহমুদুল্লাহ সৌম্যর ব্যাটে সিরিজে সমতা আনলো বাংলাদেশ

শুরুতে দুই উইকেট হারিয়ে হোচট খেলেও মাহমুদুল্লাহ আর সৌম্য সরকারের দৃঢ়তায় সিরিজে সমতা আনলো বাংলাদেশ। এই দুজন ব্যাটসম্যান স্থির হয়ে ব্যাট করে ১৩০ রানের জুটি গড়তে সক্ষম হয়েছেন। ৭ উইকেটের এই জয়ে সিরিজে ১-১ -এ সমতা ফিরিয়েছে বাংলাদেশ। দীর্ঘ আট বছর পর এই প্রথম দক্ষিণ আফ্রিকাকে কোনো ম্যাচে হারাল টাইগাররা।
দলের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার করেছেন অপরাজিত ৮৮ রান। এই দুজনের ব্যাটের ওপর ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে সমতা আনতে সক্ষম হলো টাইগাররা। সৌম্য সরকার শেষ বলে ছক্কা হাকিয়ে জয় তুলে নেন।
মাহমুদুল্লাহ হাফ সেঞ্চুরি করে আউট হলেও জয়ের ভিত গড়ে দেন। মাত্র ২৭ ওভারেই জয়ের লক্ষ্যে ১৬৩ রান করতে সক্ষম হয় টাইগাররা।
খেলায় ম্যান অব দা ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন অপরাজিত ৮৮ রান করা ওপেনিং ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার।
টানা চারটি আন্তর্জাতিক ম্যাচে হারের পর জয় পেল বাংলাদেশ। সর্বশেষ চার ম্যাচে মাশরাফিদের খেলায় আগ্রাসনের অভাব ছিল। এবার আগ্রাসী মেজাজে খেলেই অসাধারণ এক জয় পেল তারা।
রোববার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৪ ওভার বাকি থাকতে ১৬২ রানে গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস। ওয়ানডেতে প্রথমে ব্যাট করে এই প্রথম বাংলাদেশের বিপক্ষে অলআউট হল তারা। জবাবে ২৭ ওভার ৪ বলে ৩ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। এই জয়ে মাশরাফিদের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলা নিয়ে সব ধরনের অনিশ্চয়তা কেটে গেছে।
সন্ধ্যার পর সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে দক্ষিণ আফ্রিকার দেয়া ১৬৩ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। অভিষেকে হ্যাটট্রিকসহ ৬ উইকেট নিয়ে হইচই ফেলে দেয়া কাগিসো রাবাদা নিজের প্রথম দুই ওভারে উইকেট নিয়ে চাপে ফেলেন স্বাগতিকদের। দ্বিতীয় ওভারেই ফিরে যান তামিম ইকবাল। রাবাদার বলে এগিয়ে এসে খেলতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগে বোল্ড হন তিনি। রাবাদার বলে একটি করে ছক্কা ও চার হাঁকালেও তার বলেই বোল্ড হয়ে বিদায় নেন লিটন দাস।
২৪ রানে দুই উইকেট হারানো বাংলাদেশ প্রতিরোধ গড়ে সৌম্য ও মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে। অতিথি বোলারদের চেপে বসতে দেননি এই দুই জনে। এক দিকে মাহমুদউল্লাহ ধীরস্থির ব্যাটিং করলেও অন্য দিকে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেন সৌম্য।
দ্রুত রান সংগ্রহ গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের থিতু হতে দেয়নি সৌম্য-মাহমুদ উল্লাহর জুটি। এই দুই জনের ব্যাটেই সিরিজে প্রথমবারের মত শতরানের জুটি পায় বাংলাদেশ।
সৌম্যর সঙ্গে ২২.৪ ওভারে ১৩৫ রানের জুটি গড়ে মাহমুদউল্লাহ ফিরে যাওয়ার সময় জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৪ রান। কাইল অ্যাবটের শিকারে পরিণত হওয়ার আগে ৫০ রান করেন তিনি। তার ৬৪ বলের ইনিংসটি ৬টি চারে গড়া। ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে জয় এনে দেয়া সৌম্য অপরাজিত থাকেন ৮৮ রানে। তার ৭৯ বলের ইনিংসটি ১৩টি চার ও একটি ছক্কা সমৃদ্ধ।
দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে দ্বিতীয় ম্যাচ জেতায় দারুণ আত্মবিশ্বাসে ফিরলো বাংলাদেশ। আগামী বুধবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে হবে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
দক্ষিণ আফ্রিকা: ৪৬ ওভারে ১৬২ (আমলা ২২, ডি কক ২, দু প্লেসি ৪১, রুশো ৪, মিলার ৯, দুমিনি ১৩, বেহারদিন ৩৬, মরিস ১২, রাবাদা ১০, অ্যাবট ৫, তাহির ১*; নাসির ৩/২৬, মুস্তাফিজ ৩/৩৮, রুবেল ২/৩৪, মাহমুদউল্লাহ ১/১৩, মাশরাফি ১/১৭)
বাংলাদেশ: ২৭.৪ ওভারে ১৬৭/৩ (তামিম ৫, সৌম্য ৮৮*, লিটন ১৭, মাহমুদউল্লাহ ৫০, সাকিব ০*; রাবাদা ২/৪৫, অ্যাবট ১/২২ )