ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:৫৮ ঢাকা, সোমবার  ২০শে আগস্ট ২০১৮ ইং

সিমের নিবন্ধন শুরু ১ নভেম্বর থেকে

মোবাইল অপারেটরদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশের (অ্যামটব) মহাসচিব টি আই এম নূরুল কবির জানিয়েছেন, আগামী ১ নভেম্বর থেকে আঙুলের ছাপ পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন কার্যক্রম পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করা হবে। তবে এখনই অনিবন্ধিত সিম বন্ধ হচ্ছে না। সব কার্যক্রম শেষ করার পরও যদি কোনো গ্রাহকের সিম অনিবন্ধিত থাকে তাহলে ওই সিম বন্ধ করা হবে।
বুধবার গুলশানে এমটবের নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি এ তথ্য জানান।
লিখিত বক্তব্যে নূরুল কবির জানান, ভুয়া পরিচয় পত্র দিয়ে যদি কোনো গ্রাহক সিম কিনে থাকেন এবং তা নিবন্ধনের সুযোগ পেয়েও নিবন্ধন না করলে তার সিম বন্ধ করে দেয়া হবে। তবে ওই গ্রাহক যদি পরবর্তীতে তার সঠিক পরিচয়পত্র সরবরাহ করেন তাহলে তার সিমের সংযোগ আবার ফিরিয়ে দেয়া হবে।
তিনি জানান, মোবাইল অপারেটরগুলো প্রথমদিকে নিজ নিজ আউটলেট থেকে গ্রাহকদের এই সেবা দেবে। তবে ১৬ ডিসেম্বর পর থেকে বিটিআরসির সঙ্গে আলোচনা করে গ্রাহকদের সিম নিবন্ধনের সময়সীমা বেঁধে দিয়ে এসএমএস পাঠানো হবে। তখন মোবাইল অপারেটরগুলোর নিজস্ব ও মনোনীত আউটলেট থেকে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে বিনামূল্যে সিম নিবন্ধন করার সুযোগ পাবেন গ্রাহকরা।
নূরুল কবির বলেন, জাতীয় ডাটাবেজে সংরক্ষিত জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে পরিচয় মিলিয়ে দেখার সুযোগ না থাকায় অপারেটররা জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যের সত্যতা যাচাই করার সুযোগ পায়নি। এর আগে ২০০৮ সালে সিম পুনঃনিবন্ধনের উদ্যোগ নেয়া হলেও তথ্য যাচাইয়ের কোনো সুযোগ না থাকায় সেই উদ্যোগ সফল হয়নি। সরকারের স্বতঃস্ফূর্ত উদ্যোগের ফলে ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে অপারেটরদের সিম রেজিস্ট্রেশনের তথ্যের সঙ্গে এনআইডি ডাটাবেজের তথ্য মিলিয়ে দেখে বৈধভাবে নিবন্ধিত সিম কার্ড যাচাইয়ের জন্য মোবাইল অপারেটর ও সরকার সমন্বিতভাবে কাজ করছে।