প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
সচিবালয়ে সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

‘সিডিএ জমি ব্যবহারে ২ বছরের কারাদণ্ড বা ১০ লাখ টাকা জরিমানা’

আইন ভেঙে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) জমি ব্যবহার করলে সর্বোচ্চ শাস্তি ২ বছরের কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড।

এমন বিধান রেখে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১৬ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সচিবালয়ে সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এতথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন ১৯৫৯ সালের। আমাদের নতুন আরও কয়েকটি কর্তৃপক্ষ হয়েছে। রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এগুলো একটু মডার্ন (আধুনিক) আইন। ওই আইনগুলোর সামঞ্জস্য রেখে এ আইনটাকে (চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন) আপডেট করা হয়েছে।

নতুন আইনে জেল ও জরিমানার পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, মাস্টার প্ল্যানের জমি যদি কেউ বিধি-বিধান অনুসরণ না করে ব্যবহার করে তবে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা হতে পারে।

এক্ষেত্রে আগে প্রথমদিনের জন্য সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা এরপর প্রতিদিনের জন্য ৫০ টাকা হারে জরিমানার বিধান ছিল।

শফিউল আলম বলেন, (কর্তৃপক্ষের) চেয়ারম্যান, সদস্য বা কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী কর্তৃপক্ষের কোনো পদে বহাল থাকাকালীন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ব্যবসা করলে শাস্তি হবে।

এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শাস্তি ২ বছরের কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড। আগের আইনে এক্ষেত্রে বলা ছিল দণ্ডবিধির ১৬৮ অনুযায়ী শাস্তি হবে।

রাস্তা থেকে সীমানা প্রাচীর, খুঁটি, বাতি ইত্যাদি অপসারণে সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকা জরিমানা, আগের জরিমানা ২০০ টাকা ছিল বলেও জানান তিনি।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরও বলেন, যেসব স্থাপনার (সরানোর) জন্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে সেগুলো অপসারণে কোনো মালিকের অপারগতার জন্য সর্বোচ্চ শাস্তি পাকা দালানের ক্ষেত্রে ৫ লাখ টাকা ও পাকা দালান নয় এমন ক্ষেত্রে ৫০ হাজার টাকা।