সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিকেলে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী এনামুল হক মোস্তফা শহীদের কফিনে ফুল দিয়ে তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।
মোস্তফা শহীদের নামাজে জানাজার পর, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লাল-সবুজ জাতীয় পতাকায় আচ্ছাদিত মোস্তফা শহীদের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।
শেখ হাসিনা কফিনে ফুল দিয়ে কিছু সময় নিরবে দাঁড়িয়ে থাকেন এবং সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রীর প্রতি শ্রদ্ধা জানান।
শেখ হাসিনা পরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হিসেবে মরহুমের কফিনে পুনরায় ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। দলের সিনিয়র নেতারা এবং সংসদ সদস্যবর্গও মরহুমের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।
প্রধানমন্ত্রী পরে মোস্তফা শহীদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন এবং সান্ত¦না দেন।
এর আগে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের পক্ষে তাঁর উপ-সামরিক সচিব শহীদের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। মোস্তফা শহীদ হবিগঞ্জ-৪ আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকিটে ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
সাবেক মন্ত্রী মোস্তফা শহীদ ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে তার অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৩ সালে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক এ্যাওয়ার্ড-এর একুশে পদক লাভ করেন।
তার নামাজে জানাজার আগে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী এবং দলের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য তোফায়েল আহমেদ এবং মরহুমের বড় ছেলে নিজামুল হক রানা সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। এডভোকেট আবু জহির এমপি এ সময় মোস্তফা শহীদের জীবন ও কর্ম সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন।
নামাজে জানাজা শেষে তার আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। জাতীয় সংসদ মসজিদের ইমাম মোনাজাত পরিচালনা করেন।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য এডভোকেট সাহারা খাতুন, চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ ফারুক খান, ড. আবদুর রাজ্জাক এবং আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহ্্সানুল করিম, হুইপগণ এবং সংসদ সদস্যবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
মোস্তফা শহীদ আজ দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৮ বছর। তিনি দীর্ঘদিন কিডনি রোগসহ বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছিলেন।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শহীদের মৃতদেহ নামাজে জানাজা শেষে বারডেম হাসপাতালের মরচ্যুয়ারিতে রাখা হয়েছে। আগামিকাল শুক্রবার সকালে তার মৃতদেহ হবিগঞ্জে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে কয়েক দফা নামাজে জানাজা শেষে তার মৃতদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

সর্বশেষ সংশোধিত: , মাধ্যম: