ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:৩১ ঢাকা, শনিবার  ২২শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

সাঈদীর রায়ে নীরবতাই খালেদার সমবেদনা: ইনু

কুষ্টিয়া: তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, “সাঈদীর রায়ে খালেদা জিয়ার নীরবতা প্রমাণ করে তিনি জামায়াত ইসলামের প্রধান পৃষ্ঠপোষক। তিনি এই রায়ে মনক্ষুণ্ন তাই নীরবতা পালন করে সমবেদনা জানালেন।”

শুক্রবার দুপুরে কুষ্টিয়া শিল্পকলা একাডেমীতে বাংলাদেশ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলন।

ইনু বলেন, “জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী যতই ধর্মের আলখেল্লা পড়ুক না কেন আদালতের রায় প্রমাণ করলো সে একজন খুনী এবং যুদ্ধাপরাধী। জামায়াতে ইসলামী দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর পক্ষে যে হরতাল ডেকেছে তা থেকে আবারও প্রমাণ হলো তারা শুধরায়নি।”

তথ্যমন্ত্রী বলেন, “একজন প্রমাণিত যুদ্ধাপরাধীর মুক্তির দাবিতে পক্ষ নেয়াই প্রমাণ করলো জামায়াত ইসলামী একটি যুদ্ধাপরাধীর দল তাই এই দলটিকে নিষিদ্ধ করাই বাঞ্ছনীয়।

তথ্যমন্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, “ইউরোপীয় পার্লামেন্ট বাংলাদেশের সংবিধান সম্পর্কে ওয়াকিফহাল না। তারা দেশের ও র‌্যাবের আইন পড়েননি। র‌্যাবকে আইনের ঊর্ধ্বে রাখা হয়, নিরাপত্তা দেয়া হয় র‌্যাবের আইনে এ ধরনের কোনো বিধান নেই। র‌্যাবের অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী বরখাস্ত হচ্ছেন, সাজা খাটছেন।”

নতুন বার্তার প্রতিনিধি ফারুক আহমেদ পিনুর ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, “এ রকম বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা কুষ্টিয়াতে ঘটেছে। এগুলোর সঙ্গে রাজনৈতিক, প্রশাসনিক বা সরকারের কোনো সম্পর্ক আছে কি না সেগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

এসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা সুরাহা করার ব্যাপারে কিছু প্রশাসনিক গাফিলতি আছে, স্বীকার করে ইনু বলেন, “সাংবাদিকরা একটু নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। কারণ তারা রাত-বিরাতে কাজ করে, সেজন্য তাদের নিরাপত্তা দেয়া দরকার।”

মন্ত্রী বলেন, “পিনুর ওপর হামলার ঘটনার খোঁজ খবর নিয়েছি। হামলায় জড়িতদের মোটামুটি সনাক্ত করা যাচ্ছে, তবে যাতে প্রকৃত আসামিরা গ্রেফতার হয় এবং তারা যেন শাস্তি পায়, সেজন্য প্রশাসন নীরবতা পালন করছে, তবে পিনুর হামলার ব্যাপারে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।”

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেন ও পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম প্রমুখ।