ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:১৪ ঢাকা, রবিবার  ২১শে অক্টোবর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

সরকারকে পালানোর জায়গা ঠিক করে রাখার পরামর্শ দিলেন খালেদা

সরকারকে পালানোর জায়গা ঠিক করে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা খালেদা জিয়া। বলেছেন, ধর্মকে কটূক্তি করার অপরাধে এই সরকারের সাবেক মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকী কারাগার থেকে বেরিয়ে জনরোষের ভয়ে লুকিয়ে আছেন। এই সরকারের পরিণতিও একই হবে। তখন কোথায় যাবেন? পালানোর জন্য জায়গা ঠিক করে রাখুন। গতকাল সন্ধ্যায় রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) আয়োজিত ইফতার মাহফিলে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। খালেদা জিয়া বলেন, বর্তমান সরকার ২০ দলের পেছনে  লেগে আছে। অপরাধ করছে সরকারের দলের লোক আর মামলা  দেয়া হচ্ছে ২০ দলের নেতাকর্মীদের নামে। আবার তারা জামিনে মুক্ত হলেও তাদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে যা অত্যন্ত নিন্দনীয়। সরকারি দলের লোক প্রকাশ্যে খুন করলেও তাদের ছেড়ে  দেয়া হয়। সরকারের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, আল্লাহ এই জালিম অত্যাচারী সরকারকে পরীক্ষা করছে- তারা কতো দুর্নীতি ও খারাপ কাজ করতে পারে, কতো মিথ্যা কথা বলতে পারে। দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারণে সরকারের পরিণতি হবে হীরক রাজার মতো। জনগণ আজ জেগে উঠেছে, যখন দড়ি ধরে টান দেবে সরকার তখন খান খান হয়ে যাবে। দুই মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, গ্রাম-গঞ্জে বন্যায় মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। কিন্তু সরকারের সেদিকে কোন খেয়াল নেই। কিন্তু পচা গম আমদানি করে সাধারণ মানুষদের তা আটা বানিয়ে খাওয়ানো হচ্ছে। পুলিশের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, কিছু কিছু পুলিশ জনগণের ওপর যে জুলুম-নির্যাতন করছে তা অত্যন্ত দুঃখজনক। তাদের উদ্দেশে বলতে চাই- আপনারা এসব বন্ধ করুন। অন্যথায় এসব ঘটনার ভবিষ্যতে আপনাদের জন্য সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াবে। এলডিপির চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রমের সভাপতিত্বে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আহমেদ আজম খান, ব্যারিস্টার হায়দার আলী,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর এমাজউদ্দিন আহমেদ, প্রফেসর ড. মাহবুবউল্লাহ, প্রবীণ সাংবাদিক সাদেক খান, মাহফুজউল্লাহ, ২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মে. জে. (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ নেজামী, খেলাফত মজলিশের চেয়ারম্যান মাওলানা মুহম্মদ ইসহাক, বাংলাদেশ ন্যাপের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি, জাতীয় পার্টির (জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, এনডিপির সভাপতি খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ আহমেদ, এলডিপির মহাসচিব ড. রেদওয়ান আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, জামায়াতের নির্বাহী পরিষদের সদস্য মাওলানা আবদুল হালিম, বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের সভাপতি শামা ওবায়েদ প্রমুখ অংশ নেন। ইফতারের আগে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এদিকে আজ রাজধানীর হোটেল পূর্বাণীতে ইসলামী ঐক্যজোট আয়োজিত ইফতার মাহফিলে যোগ দেবেন খালেদা জিয়া।