ব্রেকিং নিউজ

রাত ১:০৪ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

বিএনপি
বিএনপি

সমাবেশ: পুলিশের অনুমতি নিয়ে অনিশ্চয়তা

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শনিবার বিএনপি’র ‘গণতন্ত্র হত‌্যা দিবস’ পালনে সমাবেশের অনুমতি মেলেনি। পুলিশ শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত হ্যা-না কিছুই বলেনি। দলের একটি প্রতিনিধিদল ঢাকা মেট্রপলিটন পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে গিয়ে সদুত্তর না পেয়ে ফিরে আসেন। বিকালে নয়াপল্টনে ভাসানী মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর বিএনপি সমাবেশের প্রস্তুতি সভা করেছে।

দলের নেতারা বলছেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে না দিতে পারলে নয়া পল্টনে বিএনপি অফিসের সামনে সমাবেশ করার অনুমতি দিলেও তারা করবেন। তারা অল্প সময়ের নোটিসে সমাবেশ করার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন।

পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শনিবার বিকেলে বিএনপির এই সমাবেশ হওয়ার কথা। এতে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া এই সমাবেশে বক্তব্য দিবেন। সমাবেশের অনুমতি চেয়ে দলের পক্ষ থেকে গত ২৬ ডিসেম্বর গণপূর্ত বিভাগসহ পুলিশ প্রশাসনকে চিঠি দেয়া হয়। গণপূর্ত বিভাগ শর্তসাপেক্ষ অনুমতি দিয়েছে। পুলিশের অনুমতি হয়নি।

জানা গেছে, গত বছর ৫ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করেছিল তারা। সেই সমাবেশের জন্য ১২ ঘণ্টা আগে ১২ টি শর্তে অনুমতি দিয়েছিলো সরকার। দলের দায়িত্বশীল নেতারা বলছেন, এবারো শর্ত সাপেক্ষ অনুমতি দিলেও আমাদের আপত্তি নেই। বিএনপির সমাবেশ হবে শান্তিপূর্ণ।

এদিকে জানা গেছে, আজ শেষ মুহূর্তে সমাবেশের অনুমতি না পেলে বিএনপি নতুন করে কর্মসূচির দিনক্ষণ দিতে পারে। সেক্ষেত্রে শনিবার দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিবেন। তবে দলের নেতারা আশা করছেন, তারা শেষ মুহূর্তে সমাবেশের অনুমতি পাবেন।

এদিকে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সমাবেশের অনুমতি না দেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন,আমরা আশা করছি আপনাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হবে। আপনারা আমাদের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই সভা করার অনুমতি দেবেন। এভাবে গণতন্ত্রকে সংকুচিত করবেন না; এভাবে দরজা জানলা বন্ধ করে দেবেন না। দরজা-জানালা খুলে দিতে হবে। হাজারটা মত আসবে, পথ আসবে। সেখান থেকেই তো গণতন্ত্র বিকশিত হবে।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান চেয়েছি, এখন পযর্ন্ত পাইনি। এখনও যদি অনুমতি দেন, জনসভা সফল করবো। সেখানে না দিয়ে যদি পার্টি অফিসের সামনে দেন, তাহলেও আমরা জনসভা সফল করতে পারবো। আমরা দু’টো প্রস্তাব-ই রাখছি।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা ৫ জানুয়ারি সভা করিনি। ওই দিন চেয়ারপার্সনের মামলার হাজিরা ছিল। আমরা যে কোনো ধরনের সংঘাত এড়াতে ৭ জানুয়ারি সভা করতে চেয়েছি। পিডব্লিউডি আমাদের অনুমতি দিয়েছে। পুলিশের অনুমতি পাইনি।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ১০ম সংসদ নির্বাচনের দিনকে ‘গণতন্ত্র হত‌্যা দিবস’ হিসেবে পালন করে বিএনপি।