Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৩:১৯ ঢাকা, রবিবার  ১৮ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

মওদুদ আহমদ
মওদুদ আহমদ, ফাইল ফটো

“সমঝোতা হলে সংবিধান কোন অন্তরায় হবে না”

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘৯১ সালের নির্বাচনের মত রাজনৈতিক সমঝোতা হলে সংবিধান কোন অন্তরায় হবে না।

মওদুদ আহমদ বলেন, সমঝোতার মাধ্যমে আগামী নির্বাচন কী করে সুষ্ঠু এবং অবাধ করা যায়-এ নিয়ে সরকারের উচিৎ আলোচনার উদ্যোগ নেয়া। এটা করা হলে সমঝোতার ওপর ভিত্তি করেই আগামী নির্বাচন হতে পারে।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ‘৭১ এর উদ্যোগে ‘সহায়ক সরকারের অধীনের জাতীয় নির্বাচন’ শীর্ষক এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি বলেন, ১৯৯১ সালে যেভাবে হয়েছিল সেখানে একইভাবে নির্বাচন বিভিন্ন পন্থা থাকতে পারে, বিভিন্ন পথ থাকতে পারে। কিন্তু একই লক্ষ্য অর্জন করার জন্য সমঝোতার মাধ্যমে যদি নির্বাচন করা যায়। সেখানে সংবিধান কোনো মুখ্য অন্তরায় হবে বলে আমি মনে করি না।

সংবিধানের বাইরে কিছু সম্ভব নয় ক্ষমতাসীনদের এ বক্তব্যের জবাবে মওদুদ বলেন, সংবিধান তো মানুষের জন্য, সংবিধানের জন্য মানুষ নয়। সুতরাং সংবিধানকে দোহাই দিয়ে এই বিষয়টিকে এড়িয়ে যাওয়া সম্ভবপর হবে না।

তিনি বলেন, বর্তমান সংকটটি রাজনৈতিক। সংবিধানের কথা বলে সমঝোতা পথ এড়িয়ে যাওয়াটা ঠিক হবে না। সংবিধানকে এখানে বড় করে দেখার কোনো উপায় নেই।

নব্বই সালে এরশাদের পদত্যাগের পর তৎকালীন প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহম্মেদ রাজনৈতিক সমঝোতায় ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরেন মওদুদ।

তিনি বলেন, ৯১ সালে দেখেছি,রাজনৈতিক সমঝোতার ওপর ভিত্তি করেই সংবিধানের বাইরে গিয়ে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহম্মেদ প্রধান বিচারপতির পদে থেকে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করেছিলেন। সেটা করতে হয়েছিল কেনো? রাজনৈতিক কারণে, সাংবিধানিক কারণে নয়। সংবিধানে (তখনও) এই ধরণের কোনো ব্যবস্থা ছিল না।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত রোডম্যাপ প্রসঙ্গে মওদুদ আহমেদ বলেন, এই রোডম্যাপে দেশের মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে কোনো রোডও নাই, ম্যাপও নাই।

তিনি অভিযোগ করেন, কিভাবে একটি একদলীয় শাসন ফিরিয়ে আনা যায়,কীভাবে আওয়ামী লীগকে সরকারে পুনর্বাসন করা যায় সেটাই নির্বাচন কমিশন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

রোডম্যাপে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলে কোনো শব্দ কমিশন ব্যবহার করে নাই উল্লেখ করে এ বিএনপি নেতা বলেন, সিইসির বক্তব্যেই পরিষ্কার হয়ে গেছে, সুষ্ঠু নির্বাচন করার ব্যাপারে নয়,তারা বর্তমান সরকারকে নির্বাচনের মাধ্যমে আবার পুনর্বাসন করতেই আগ্রহী।

তিনি বলেন, আমাদের বক্তব্য সুস্পষ্ট। নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ করতে হলে এখন থেকেই পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের বক্তব্যের জবাবে মওদুদ বলেন, খালেদা জিয়ার পালিয়ে যাওয়ার কোনো রেকর্ড নাই।

সংগঠনের সভাপতি ঢালী আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আহমেদ আজম খান প্রমুখ।