Press "Enter" to skip to content

সন্দেহভাজন ‘বিমান ছিনতাইকারী’ নিহত

ঢাকা থেকে দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের নতুন উড়োজাহাজ ময়ূরপঙ্খী ছিনতাইয়ের চেষ্টাকারী সন্দেহভাজন ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আজ সন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে আটক করা হয় বলে খবর পাওয়া যায়। এরপর আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর (আইএসপিআর) জানায়, ওই ব্যক্তি মারা গেছেন।

ঘটনার পর রাত ৯টার দিকে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে সেনাবাহিনী জানায়, নিহত ব্যক্তির নাম মাহাদি। তার শেষ কথা ছিল তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা বলতে চান। আর তার হাতে একটি পিস্তল ছিল।

এর আগে বিকালে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের দিকে যাত্রা করে বিমানের বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি। সেখান থেকে দুবাই যাওয়ার কথা ছিল। চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর বিমান থেকে নিরাপদে সব যাত্রীদের নামিয়ে দেওয়া হয়। এরপরই রানওয়েতে বিমানটি ঘিরে ফেলে সেনাবাহিনী, র‌্যাব ও পুলিশ।

বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম নাইম হাসান জানান কম্বিং অপারেশনের মাধ্যমে আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ‘ছিনতাইকারীকে’ আহত অবস্থায় আটক করা হয়েছে।

সংস্থাটির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আটক ব্যক্তিকে মানসিক ভারসাম্যহীন বলে মনে হয়েছে। রাত ৮টার দিকে উড়োজাহাজ চলাচলের জন্যে বিমানবন্দরটি খুলে দেয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, আজ বিকালে ১৪২ জন যাত্রী ও পাঁচজন ক্রু নিয়ে ময়ূরপঙ্খী নামের বিজি-১৪৭ ফ্লাইটটি ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে দুবাই যাচ্ছিল। একজন যাত্রীর সন্দেহজনক আচরণের কারণে উড়োজাহাজটিকে চট্টগ্রামে জরুরি অবতরণ করানো হলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা উড়োজাহাজটিকে ঘিরে রাখে।

তারপর যাত্রীদের নিরাপদে উড়োজাহাজটি থেকে নামিয়ে আনা হয়।

সেসময় বেসামরিক বিমান পরিবহন সচিব মহিবুল হক বলেন, একজন যাত্রীর সন্দেহজনক আচরণের প্রেক্ষিতে একজন কেবিন ক্রু সদস্য অ্যালার্ম বাজান। এরপর, পাইলট উড়োজাহাজটির জরুরি অবতরণ ঘটান হয়।

Mission News Theme by Compete Themes.