Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:০৬ ঢাকা, রবিবার  ১৮ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

প্রধানমন্ত্রীর পুত্র ও উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এবং প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক-ফাইল ফটো।

“সজীব ওয়াজেদের সহযোগিতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাত এগিয়ে যাচ্ছে” : পলক

palakসজীব ওয়াজেদ জয় এর প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে নানা উদ্যোগ বাস্তবায়িত হচ্ছে। আজ বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) মিলনায়তনে শিশু সাংবাদিকদের একটি কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে  প্রধান অতিথির ভাষণে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৭০ শতাংশই তরুণ হওয়ায় বাংলাদেশ বর্তমানে জনসংখ্যাতাত্বিক সুবিধায় রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে এসব তরুণদের মেধাকে কাজে লাগাতে চান। সেজন্যই তিনি তরুণদের তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় প্রশিক্ষিত করে তোলার উপর গুরুত্ব দিয়েছেন।
সরকার প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য পুত্র আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন কম্পিউটার বিজ্ঞানী সজীব ওয়াজেদের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে নানা উদ্যোগের বাস্তবায়ন করছে বলে তিনি জানান।
পলক বলেন, সরকার প্রতিবছর শিক্ষার্থীদের জন্য বিনামল্যে কোটি কোটি বই বিতরন করে। এখন বই বিতরনের পাশাপাশি ল্যাপটপ প্রদান শুরু হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ইতোমধ্যে সারদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাড়ে তিন হাজার কম্পিউটার ল্যব প্রতিষ্ঠা করেছে।

শিশুদের কথা লেখনীর মাধ্যমে তুলে ধরায় উৎসাহিত করতে দেশের ৬৪ জেলার ৭৯ জন শিশু ও কিশোর সাংবাদিককে ল্যাপটপ প্রদান করা হয়েছে।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এক্সিম ব্যাংকের সহযোগিতায় ‘ওয়ান ল্যাপটপ ওয়ান ড্রিম’ প্রকল্পের আওতায় শিশুদের কথা লেখার বিশেষায়িত ওয়েবসাইট হ্যালো.বিডিনিউজ২৪.কমের শিশু ও কিশোর সাংবাদিকদের মাঝে এই ৭৯টি ল্যাপটপ বিতরন করা হয়।

পলক বলেন, আজকের যারা শিশু তারা ২০৪১ সালে উন্নত বাংলাদেশ গড়ায় নেতৃত্ব দেবে। আজ যারা কিশোর তারা ২০২১ সালের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। আর আজকের এসব শিশু ও কিশোরদের কথা লেখনীর মাধ্যমে তুলে ধরে তাদের ভবিষ্যতে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলায় সহায়তা করতে পারে শিশু ও কিশোর সাংবাদিকরা।

তিনি বলেন, আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ ছেলে শেখ রাসেলের নাম স্মরণীয় করে রাখতে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে আরও দুই হাজার কম্পিউটার ল্যাব ও ৬৪ জেলায় ৬৪টি কম্পিউটার ল্যাব কাম ল্যাঙগুয়েজ ল্যাব স্থাপনের স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। বিশ্বে প্রেগামারের চাহিদা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেদিকে লক্ষ্য রেখে আইসিটি বিভাগ হাই স্কুলগুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামিং শেখাচ্ছে।
আওয়ামী লীগের নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণ প্রসঙ্গে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার তার প্রতিটি নির্বাচনী অঙ্গীকার পূরণে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। প্রতিমন্ত্রী হিসাবে শিশু ও কিশোর সাংবাদিকদের ল্যাপটপ প্রদানের যে প্রতিশ্রতি দেয়া হয়েছিল তা আজা পূরণ করা হলো।
অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার ও এক্সিম ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর খন্দকার রুমী ইহসানুলহক।