ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:৪৮ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৩শে অক্টোবর ২০১৮ ইং

“ফের মোবাইল ফোন সিম নিবন্ধনের উদ্যোগ”

আগামী তিন মাসের মধ্যে প্রায় ১৩ কোটি সিমের নিবন্ধনের কাজ শেষ করতে হবে। সব অপারেটরের মোবাইল ফোন সিমের পুন:নিবন্ধন করতে হবে।

রোববার টেলিযোগাযাগ মন্ত্রনালয়ের এক বৈঠকে নেওয়া এ সিদ্ধান্ত দ্রুত মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে জানানো হবে। নিবন্ধনবিহীন ও ভুয়া পরিচয়ে সিমকার্ড ব্যবহার করে অপরাধ বন্ধে মূলত এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং বিটিআরসির ঠৈবকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

সভায় সিম বিক্রির সঙ্গে যুক্ত ডিলার ও বিক্রেতাদেরও তালিকাও প্রথমবারের মতো করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে নিবন্ধন শুরুর আগে নির্বাচন কমিশন থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রের ডেটাবেজের কানেকটিভিটি দেওয়া হবে। এ বিষয়ে ২/১ দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদেরকে চিঠি লিখবেন তারানা হালিম। আর একই সঙ্গে পুরো প্রক্রিয়া নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটরসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে চলতি সপ্তাহেই বৈঠক করবেন প্রতিমন্ত্রী। এর আগে ২০০৮ সালেও একবার সব সিমের পুন:নিবন্ধন হয়েছিল। তবে তখন জাতীয় পরিচয়পত্রের মতো গ্রহণযোগ্য কোনো পরিচয়পত্র না থাকায় ওই প্রক্রিয়া তেমন কাজে লাগেনি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে মোবাইল ফোনকেন্দ্রিক বিভিন্ন অপরাধ বেড়ে যাওয়ায় সরকারের নীতিনির্ধারকরা বেশ কিছু দিন থেকেই নতুন করে নিবন্ধনের কথা ভাবতে শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তারানা হালিম সাংবাদিকদের বলেন, তাদের বিবেচনায় সব অপরাধের সূত্রে থাকছে মোবাইল সিম। তাই এটির সঠিক নিবন্ধন হওয়া খুবই জরুরি।

টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, তারা মার্কেটকে কোনো অবস্থায় ডিস্টাবেল করতে চান না। কিন্তু তাই বলে এমন পরিস্থিতিও মেনে নেওয়া যায় না যে যেমন ইচ্ছা সিম বিক্রি হবে।

এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে বর্তমানে দেশে কার্যকর থাকা ১২ কোটি ৮৭ লাখ মোবাইল সিমের সবগুলোই পুন:নিবন্ধন করতে হবে। মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। তারা বলছেন, কোনো না কোনো সময় আমাদেরকে পুন:নিবন্ধনের যেতেই হতো। সেটা এখন হয়ে যাওয়াই উত্তম। তবে এক্ষেত্রে গ্রাহক ভোগান্তি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মোবাইল ফোন অপারেটরদের খরচও কয়েকশ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে।

যদিও এ বিষয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান আজ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘গতকালের (রোববার) বৈঠকে আমিও ছিলাম। সেখানে বলা হয়েছে, অনিবন্ধিত সিম নিবন্ধন করতে হবে।’

সিম পুনঃনিবন্ধন একটা চলমান প্রক্রিয়া উল্লেখ করে সুনিল বলেন, ‘গত তিন মাস ধরে সিম পুনঃনিবন্ধন চলছে। এটি আগের নির্দেশনার ধারাবাহিকতা। যারা সঠিকভাবে নিবন্ধিত রয়েছে তাদের পুনরায় নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই।’

তার মতে, খুচরা বিক্রেতা ও ডিস্ট্রিবিউটররা রেজিস্টেশন ছাড়াই অনেক সময় গ্রাহকের কাছে সিম বিক্রি করে। এ ধরনের গ্রাহকদের সিম পুনরায় নিবন্ধন না হলে যাচাই করার সময় সে সব সিম বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানান বিটিআরসি চেয়ারম্যান।