Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৪:০৬ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের স্থগিতাদেশ চায় রাষ্ট্রপক্ষ’

সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে দিয়ে করা সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষনা করে দেয়া হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন জানিয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ।

আজ রায়ের স্থগিতাদেশ চেয়ে আপিল বিভাগের চেম্বার কোর্টে আবেদন দাখিল করেছেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এটর্নি জেনারেল বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান।

উচ্চ আদালতের বিচারকদের অপসারণ ক্ষমতা সংসদের হাতে অর্পণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীকে অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করে গত মে রায় দিয়েছে হাইকোর্ট। বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে হাইকোর্টের একটি বৃহত্তর বেঞ্চের সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারকের মতের ভিত্তিতে এ রায় দেয়া হয়েছে।

বেঞ্চের অপর দুই সদস্য হলেন- বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামাল।

এর আগে হাইকোর্টে বিষয়টির ওপর দীর্ঘ ১৭ কার্যদিবস ধরে রাষ্ট্রপক্ষ ও রিটকারী পক্ষ এবং এমিকাস কিউগণের শুনানি গ্রহণ করা হয়। কেন ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করা হবে এ মর্মে রুল নিষ্পত্তি করে এ রায় দেয় হাইকোর্ট। এ মামলায় ৪ বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেন, এম আমীর-উল ইসলাম, রোকনউদ্দিন মাহমুদ ও আজমালুল হোসেন কিউসি এমিকাস কিউরি হিসেবে মত দেন। আদালতে রিটকারীর পক্ষে আইনজীবী ছিলেন মনজিল মোরেশেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীর আলোকে বিচারপতি অপসারণের জন্য একটি খসড়া আইন প্রস্তত করা হয়েছে। অসদাচারণের জন্য সুপ্রিমকোর্টের কোনো বিচারকের বিরুদ্ধে তদন্ত ও তাকে অপসারণের প্রক্রিয়া নির্ধারণ করে ‘বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট বিচারক (তদন্ত) আইন’ এর খসড়ার নীতিগত গত ২৫ এপ্রিল মন্ত্রিসভা অনুমোদন দেয়।

সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের কাছে ফিরিয়ে নিতে ২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আনা হয়। বিলটি পাসের পর ওই বছরের ২২ সেপ্টেম্বর তা গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়। পরে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আইন-২০১৪-এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ওই বছরের ৫ নভেম্বর সুপ্রিমকোর্টের নয়জন আইনজীবী আবেদনকারী হয়ে রিট আবেদনটি করেন।

FOLLOW US: