ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:৩২ ঢাকা, শুক্রবার  ২০শে জুলাই ২০১৮ ইং

শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা

শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট ঢাকা ত্যাগ করেছেন

শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা বাংলাদেশে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে আজ কলম্বোর উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেছেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আজ দুপুর ১টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শ্রীলংকার প্রেসিডেন্টকে বিদায় জানান।

সেরিসেনা এর আগে রাজধানীর একটি হোটেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিআইডিএ) ও মেট্রোপলিটন চেম্বার্স অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাষ্ট্রিজের (এমসিসিআই) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ‘বাংলাদেশ-শ্রীলংকা ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড বিজনেস ডায়লগ : মোবিং টুওয়ার্ডস গ্রেটার ইকোনমিক পার্টনারশিপ’ শীর্ষক সংলাপে যোগদান করেন।

বাংলাদেশের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এবং শ্রীলংকার সফররত ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদল এই সংলাপে অংশ নেন। এতে তারা দুই দেশের ব্যবসা ক্ষেত্রে উন্নয়নের উপায় ও তা আরো বৃদ্ধির ব্যাপারে আলোচনা করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্যকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, শ্রীলংকার প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর বিশেষ করে ‘ফ্রি ট্রেড এগ্রিমেন্ট (এফটিএ)’ চুক্তি স্বাক্ষরের ফলে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের সৃষ্টি করবে। তিনি বলেন, ‘এই চুক্তি স্বাক্ষরের ফলে বাণিজ্য ও ব্যবসার ক্ষেত্রে নতুন ক্ষেত্র তৈরি হওয়ায় বাংলাদেশ-শ্রীলংকা সস্পর্ক সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

শ্রীলংকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাভি করুনানায়েকে এফটিএ-কে দুই দেশের ‘উইন-উইন সিচ্যুয়েশান’ নিশ্চিতে একটি যন্ত্র উল্লেখ করে বলেন, এই চুক্তি দুই দেশ একে অপরকে বিনিয়োগে সহায়তা করবে এবং দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে পারস্পরিক সহযোগিতা আরো বৃদ্ধি পাবে।

এই বাণিজ্য সংলাপে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়কারী (এসডিজি বিষয়ক) মো. আবুল কালাম আজাদ, বিডা-র নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম, এফবিসিসিআই সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, এমসিসিআই সভাপতি নিহাদ কবির, এমসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি সৈয়দ নামিস মন্জুর ও লাফস্ হোল্ডিংস লিমিটেড চেয়ারম্যান ডব্লিউ কেএইচ উইগাপিতিয়া অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

২০১৫ সালে শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর এটি ছিল সিরিসেনার প্রথম বাংলাদেশ সফর। এর আগে ২০১৩ ও ২০১৪ সালে শ্রীলংকার স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকাকালে তিনি বাংলাদেশ সফর করেছিলেন।

তার তিন দিনের ঢাকা সফরকালে দুই দেশের মধ্যে প্রধানত ব্যবসা ক্ষেত্রসহ মোট ১৪টি ক্ষেত্রে চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই হয়।
বৃহস্পতিবার রাজধানীতে বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও জাতীয় স্মৃতিসৌধে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের স্মরণে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে ঢাকায় শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট সফর শুরু করেন।

তিনি গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেন এবং সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে বঙ্গভবনে সাক্ষাৎ করেন। তার সম্মানে বঙ্গভবনে নৈশ ভোজের আয়োজন করা হয়।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম শ্রীলংকার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার হোটেল স্যুইটে সাক্ষাৎ করেন।