Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:২৮ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২২শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

“শেখ হাসিনার নামে হবে চাঁনখারপুলের প্রস্তাবিত বার্ন ইনস্টিটিউটটি”

রাজধানীর চাঁনখারপুলে স্থাপনের লক্ষ্যে প্রস্তাবিত বার্ন ইনস্টিটিউটের নাম আজ থেকে ‘শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট’ হিসাবে পরিচিত হবে।
নতুন এই স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের নাম প্রধানমন্ত্রীর নামে প্রতিষ্ঠা করার জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে একটি আনুষ্ঠানিক পত্র বঙ্গবন্ধু ট্রাস্ট বরাবর অনুমোদনের জন্য শীঘ্রই প্রেরণ করা হবে। ট্রাস্টের অনুমোদনের পর এর নামকরণ চূড়ান্ত হবে। আর আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ইনস্টিটিউটের নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন।
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম আজ সচিবালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন।
সম্মেলনে অন্যান্যের মাঝে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বিমান কুমার সাহা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ দীন মোঃ নুরুল হক, বার্ন ইনস্টিটিউট প্রকল্পের জাতীয় সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেনসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
প্রস্তাবিত ‘শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট’ এর নির্মাণ ব্যয় দেশীয় সম্পদ থেকে হবে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় বাংলাদেশের পক্ষ ভারতের কাছে প্রস্তাব করা হয়েছে যেন আন্তর্জাতিক মানের এই বার্ন ইনস্টিটিউট এর নির্মাণে ভারতের অনুদান থেকে একটি অংশ বরাদ্দ করা হয়।
তিনি নিজেও ভারতের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাথে এই বিষয়ে কথা বলেছেন উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, গত বছরের ২৪ নভেম্বর এই ইনস্টিটিউট নির্মাণের প্রকল্প একনেকে অনুমোদিত হয়েছে। এ বছরের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত এই প্রকল্প বাস্তবায়নের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ৫২২ কোটি ৪৯ লক্ষ টাকা।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী সম্মেলনে বলেন, বিগত কয়েক বছরে একটি রাজনৈতিক দলের প্রতিহিংসা মেটানোর লক্ষ্যে সারা দেশে আগুন ও পেট্রোল বোমা সন্ত্রাস ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। শত শত মানুষ আগুনে দগ্ধ হয়ে ঝলসানো শরীর নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছিল। মারা গেছে অসংখ্য নিরীহ মানুষ। তাদের হাত থেকে শিশু বা অন্তঃসত্তা নারীও রক্ষা পায়নি।
এসময় দিনমজুর, রিক্সাচালক, ট্রাক ড্রাইভারসহ অগণিত গরীবের পাশে মায়ের মমতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দাঁড়ানোর কথা স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, সারা দেশের মানুষ দেখেছে আগুন সন্ত্রাসের সময় প্রধানমন্ত্রী কিভাবে দরিদ্র মানুষের জন্য সর্বোত্তম চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছিলেন। জনগণ ও অগ্নিদগ্ধ মানুষের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর সেই অবদানকে কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বার্ন ইনস্টিটিউটের নামকরণ জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার নামে রাখার প্রস্তাব দিয়েছে।
চাহিদার তুলনায় বার্ন ইউনিটের ধারণ ক্ষমতা অত্যন্ত নগণ্য হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশে একটি আন্তর্জাতিক মানের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয় বলে উল্লেখ করেন তিনি।
প্রস্তাবিত ‘শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউট’ এর নির্মাণ ব্যয় দেশীয় সম্পদ থেকে হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় বাংলাদেশের জন্য ভারতের অনুদান ঘোষণার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের পক্ষ ভারতের কাছে প্রস্তাব করা হয়েছে যেন আন্তর্জাতিক মানের এই বার্ন ইনস্টিটিউট এর নির্মাণে ভারতের অনুদান থেকে একটি অংশ বরাদ্দ করা হয়। তিনি নিজেও ভারতের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাথে এই বিষয়ে কথা বলেছেন বলে এই সময় জানান।গত বছরের ২৪ নভেম্বর এই ইনস্টিটিউট নির্মাণের প্রকল্প একনেকে অনুমোদিত হয়। এ বছরের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত এই প্রকল্প বাস্তবায়নের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ৫২২ কোটি ৪৯ লক্ষ টাকা।