Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:৪১ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

শেখ হাসিনাকে হত্যা ও অভ্যুত্থানের পরিকল্পনা ছিল জেএমবির

টাইমস অব ইন্ডিয়া আজ রোববার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্রের বিষয়ে শাহনূর বিস্তারিত তথ্য দিয়েছেন।
আসাম পুলিশের দাবি, শাহনূর নিষিদ্ধ জঙ্গিসংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) গুরত্বপূর্ণ নেতা। শুক্রবার রাতে আসামের নলবাড়ি জেলার লবকুচি গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে শাহনূরের বলছেন, তিনি নিজেই পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন।
বর্ধমান বিস্ফোরণের ঘটনা তদন্ত করছে ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (এনআইএ)। গ্রেফতার শাহনূরকে তাদের হাতে তুলে দিয়েছে পুলিশ। শনিবার আসামের কামরূপ আদালত শাহনূরের ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।
নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক সূত্রের বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা ও অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ‘বৃহত্তর ইসলামিক রাষ্ট্র’ গঠনের পরিকল্পনা ছিল জেএমবির।
ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীর বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া আরো জানায়, শাহনূরের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষের কাছে একটি প্রতিবেদন পাঠাতে পারে। কলকাতায় এসে শাহনূরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে কি না সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষ।
২ অক্টোবর বর্ধমানের বিস্ফোরণের ঘটনায় জেএমবির সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে শুরু থেকেই দাবি করে আসছে ভারতের তদন্তকারীরা। জড়িত সন্দেহে ১১ জনের একটি তালিকাও প্রকাশ করে এনআইএ। সেই তালিকায় শাহনূরের নাম ছিল, যিনি পেশায় একজন পল্লি চিকিৎসক।
গত মাসে আসামে  সন্তানসহ শাহনূরের স্ত্রী সুজিনা গ্রেফতার হন। তখন শাহনূর পালিয়ে যান। এবার গ্রেফতারের পর সুজিনাকে দিয়ে শাহনূরের পরিচয় শনাক্ত করা হয়।
The Times of India

 Jamaat man held in Assam, confirms plot to kill Hasina


Burdwan blast suspect Shahnoor Alam arrested

Burdwan blast suspect Shahnoor Alam arrested
GUWAHATI/KOLKATA: Assam police have arrested a key leader of the Bangladesh terror outfit Jamaat-ul-Mujahideen from a sleepy district of Nalbari and initial questioning of the man identified as Sahanur Alon alias “doctor” revealed an elaborate plot to assassinate prime minister Sheikh Hasina.

Sahanur, arrested on Friday night, was one of the most wanted terrorists in the Burdwan blast case. Sources said the Bangladesh mujahideen planned to kill Hasina and stage a coup to set up a “Greater Islamic Bangladesh”. The National Investigation Agency, which is probing the Burdwan terror case, is likely to send a report to their Bangladeshi counterparts after which it will be decided if they need to visit Kolkata again to question Sahanur, head of the outfit in Assam.

NIA had announced a reward of Rs 5 lakh for information leading to Sahanur’s capture. The 31-year-old’s arrest is the biggest breakthrough since Bengal module chief Sajid was nabbed on November 8. Known as ‘daktar’ in the outfit and to intelligence agencies, Sahanur passed himself off as a dentist or a homoeopath by day and handled JMB’s finances and arms shipments by night, said security sources.

Assam DGP Khagen Sarma said Sahanur was not a combatant versed in use of firearms. “But he is more dangerous as he was involved in motivational training to recruit youths,” Sarma said. Sahanur has revealed that several JMB leaders from Bangladesh visited a madrassa in Larkuchi in Nalbari – just as they did in Simulia and Mukimnagar madrassas in Bengal – to build a wider base among Assamese-speaking Bangladeshi immigrants.


Bangladesh Prime Minister Sheikh Hasina.

Sahanur and his wife Suzena went into hiding soon after the IED blast at Burdwan on October 2 that blew the lid off the JMB network in India. Suzena was arrested last month in Guwahati. “We missed Sahanur by a whisker several times. We kept tracking him but he was moving from place to place in Meghalaya, Assam and areas on the India-Bangladesh border. He, however, could not go to Bangladesh,” Sarma said.

While being produced in court on Saturday afternoon, Sahanur claimed he had surrendered and that his brother-in-law, Majibur, in whose house he was taking shelter, was in touch with police for this. The DGP, however, denied it. “I don’t consider it as surrender because we were on the lookout for him,” Sarma said. He has been sent to 14 days’ police custody.

According to NIA officers, Sahanur might be flown to Kolkata for interrogation. “Three key JMB operatives – Khaled, Hakim and Sajid – are in our custody and we want to interrogate Sahanur face-to-face with them. Khaled being the Myanmar pointsman and Sajid one of the main operatives in Bengal, there is a very strong possibility that they were interconnected and shared vital information,” an officer said.

Security agencies of both countries hope to get clues from Sahanur to track down JMB financiers. According to NIA officers, funds for JMB used to reach Assam via Myanmar and North-East through hawala channels. “After the money reached Sahanur, he used to send it to different places according to instructions,” an NIA officer said. Investigators had got some insight into JMB’s money trail after Suzena’s interrogation. “We are trying to find out if there was any direct funding by any person in Bengal or other parts of India. Sahanur can also tell us if money reached Bangladesh through him,” the officer added.