ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:০৫ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

তোফায়েল আহমদ
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ, ফাইল ফটো

শুল্কবাধা দূর হলে ভারতে রপ্তানি বাড়বে: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ভারতের সাথে বাংলাদেশের বাণিজ্য বাধা দূর করে আমদানি-রপ্তানি বাড়াতে হবে। টেরিফ ও ননটেরিফ ব্যারিয়ার যাতে দু‘দেশের বাণিজ্যে বাধার সৃষ্টি করতে না পারে, সে বিষয়ে ভারত সরকারকে পদক্ষেপ নিতে হবে।

মন্ত্রী আজ ইন্ডিয়ান চেম্বার অব কমার্স এবং ভারতের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় আয়োজিত অন্ধ্রপ্রদেশের ভিশাখাপাটনামে অনুষ্ঠিত দু‘দিনব্যাপী পার্টনারশিপ সামিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদানের পর ভারতের বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী নির্মলা সিতারামান-এর সঙ্গে একান্ত বৈঠকে এসব কথা বলেন।

অতি সম্প্রতি বাংলাদেশের জুট পণ্যের উপর যে এ্যান্টি ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করা হয়েছে, তাতে বাংলাদেশের পাটপণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বিরুপ প্রভাব পড়ছে, এশুল্ক প্রত্যাহার করা প্রয়োজন জানিয়ে তোফায়েল আহমেদ ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রীকে আরো বলেন, ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে চলমান বাণিজ্য সমস্যাসমূহ দূর করতে অফিসিয়াল আলোচনার উদ্যোগ প্রয়োজন।

মন্ত্রী বলেন, গত অর্থবছর বাংলাদেশ ভারতে ৬৮৯.৬২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যে পণ্য রপ্তানি করেছে, একই সময়ে আমদানি করেছে ৫৬৯৫.৭৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। বাণিজ্য বাধা দূর করা হলে বাংলাদেশের রপ্তানি অনেক বাড়বে। বাণিজ্য বাধার কারণে বাংলাদেশ ভারতে আশানুরুপ রপ্তানি করতে পাচ্ছে না বলে জানান তিনি।

প্লিনারী সেশনে বক্তৃতার সময় বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী চিন্তা ও যোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। শেখ হাসিনা ঘোষিত ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোনে পৃথিবীর অনেক দেশ বিনিয়োগ করছে। বৈদেশিক বিনিয়োগে বিশেষ সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে আছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, নিজ অর্থায়নে বাংলাদেশ মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। দেশের ৫০ বছর পূর্তিতে ২০২১ সালে বাংলাদেশ বিশে^র একটি মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। বাংলাদেশ এখন ৩৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি করছে।

ভারত বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে সৈন্য, অর্থ, খাদ্য, আশ্রয় দিয়ে আন্তরিকতার সাথে সহযোগিতা করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এর জন্য বাংলাদেশের মানুষ ভারতের কাছে কৃতজ্ঞ।

অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী নারা চন্দ্র বাবু নাইডু-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সামিটের এ সেশনে ভারতের বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী নির্মলা সিতারামান, সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইকোনমি মিনিস্টার সুলতান বিন সায়েদ, শ্রীলংকার বাণিজ্যমন্ত্রী রিশাদ বাথ বক্তব্য রাখেন।

ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুন জেইটলি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বক্তাগণ বাংলাদেশের অর্থনৈতিক, সামাজিকসহ সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে যাবার প্রশংসা করেন। অনুষ্ঠানে নেপালের বাণিজ্যমন্ত্রী, ইউক্রেনের ডেপুটি প্রাইম মিনিস্টারসহ অনেকই বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য, ভারতের বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী নির্মলা সিতারামান এবং অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী নারা চন্দ্র বাবু নাইডু’র আমন্ত্রণে পার্টনারশিপ সামিটে যোগদানের উদ্দেশ্যে শুক্রবার তিনি ঢাকা ত্যাগ করেন।