শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:৫০ ঢাকা, রবিবার  ১৬ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

শিশু রাজন হত্যার ঘটনায় রিমান্ডে মুহিত :শরীরে ৬৪টি আঘাত চিহ্ন

খুঁটির সঙ্গে বেঁধে পৈশাচিক নির্যাতন করে শিশু রাজন হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামি মুহিত আলমকে ৫ দিনের জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি পেয়েছে পুলিশ।

সিলেটের মহানগর হাকিম আদালত-২ এর বিচারক ফারহানা ইয়াসমিন সোমবার ৫দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জালালাবাদ থানার ওসি (তদন্ত) আলমগীর হোসেন রোববার মুহিতকে সাত দিনের রিমান্ডে চেয়ে আবেদন করেছিলেন। পরে শুনানির জন্য আজ দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।
এদিকে, এ মামলার আরেক আসামি ইসমাঈল হোসেন আবলুকে (৩২) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) জালালাবাদ থানা এলাকার লামাকাজি মিরেরগাঁও থেকে সোমবার ভোরে ইসমাঈলকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃত ইসমাইল শিশু রাজন হত্যার প্রধান আসামি মুহিত আলমের তালতো ভাই।
মামলার অন্যতম আসামি সৌদি প্রবাসী কামরুল ইসলামের দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। জালালাবাদ থানার ওসি আখতার হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন। এদিকে রাজনের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেয়েছে পুলিশ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আঘাতের কারণে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের ফলে মারা গেছে রাজন। তার শরীরের ৬৪টি স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
উল্লেখ্য, গত বুধবার রাজনকে পৈশাচিক নির্যাতন করে লাশ গুমের চেষ্টা করে ঘাতকরা। ওইদিন ঘাতকরা বেলা ১১টার দিকে একটি মাইক্রোবাসে তার লাশ পার্শ্ববর্তী একটি গ্রামের মাঠে ফেলে যাওয়ার সময় গ্রামবাসীর সন্দেহ হলে মাইক্রোবাসসহ পুলিশের হাতে আটক হয় মুহিত আলম। খবর পেয়ে রাতে থানায় গিয়ে পরিবারের সদস্যরা রাজনের লাশ শনাক্ত করেন।
এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে জালালাবাদ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলায় আটক মুহিত আলম (২৫) ও তার ভাই কামরুল ইসলাম (২৮), তাদের সহযোগী আলী হায়দার ওরফে আলী (৩৪) ও চৌকিদার ময়না মিয়া ওরফে বড় ময়নাকে (৪৫) আসামি করা হয়েছে।