ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:০৬ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

‘শিক্ষার্থীদের মনিটরিং করার নির্দেশ’

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি ক্লাসে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি, তাদের আচার-আচরণ ও চলাফেরা মনিটরিং করার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, নিয়মিত পাঠদান, প্রাক্টিক্যাল ক্লাস ও শিক্ষার সাথে সম্পৃক্ত কাজগুলো, যেমন- সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, সায়েন্স ফেয়ার, স্কাউটিং, গার্লস গাইড, বির্তক প্রতিযোগিতা ও দেয়াল পত্রিকা প্রকাশের মতো কার্যক্রম চালু থাকলে কোমলমতি মেধাবি শিক্ষার্থীদের বিপথগামিতা রোধ করা সম্ভব হবে।

‘জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে কারিগরি শিক্ষকদের করণীয়’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় শিক্ষামন্ত্রী আজ এ কথা বলেন।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে যৌথভাবে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড।

শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে এ সভায় আরো বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান এ কে এম হামিদ, বাংলাদেশ স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান সাজু, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. মোস্তাফিজুর রহমান ও বিভিন্ন কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষবৃন্দ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা দেন কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (ভোকেশনাল) মিজানুর রহমান।

শিক্ষকদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের নিয়মিত পাঠদানের পাশাপাশি তাদের সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডসহ নানা কাজে ব্যস্ত রাখতে হবে।

তিনি বলেন, প্রত্যেক শিক্ষার্থীর নাম শিক্ষকদের জানতে হবে। তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে হবে। ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে, অমনযোগী হলে পড়লে বা রেজাল্ট খারাপ করলে তা অভিভাবকদের জানাতে হবে।

জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে নাহিদ বলেন, প্রয়োজনে এ ক্ষেত্রে শিক্ষকদেরই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। অভিভাবক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ কমিটি গঠন করতে হবে।

প্রকৃত ইসলামের শিক্ষা পেলে কেউ জঙ্গি হতে পারেনা উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। এর মূলবাণী হচ্ছে মানবতাবোধ। ইসলামে দাঙ্গা-ফাসাদের স্থান নেই।

তিনি বলেন, যারা ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে মেধাবি তরুণদের মগজ ধোলাইয়ের মাধ্যমে বিপথগামী করছে ও বেহেস্তের লোভ দেখিয়ে মানুষ হত্যা করাচ্ছে, তারা কি জানে না ইসলামে মানুষ হত্যা মহাপাপ?

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মানুষ হত্যা মহাপাপ বলেই এসব বিপথগামী তরুণদের লাশ তাদের পরিবার গ্রহণ করছে না। বরং তাদের অভিভাবকরা জাতির কাছে লজ্জিত হয়ে ক্ষমা চাইছে। এ থেকেও অন্যান্য বিপথগামী তরুণদের শিক্ষা নিয়ে স্বাভাবিক পথে ফিরে আসার জন্য তিনি আহবান জানান।

নাহিদ বলেন, গতানুগতিক সনদসর্বস্ব লেখাপড়া থেকে বেকারত্বের হতাশাগ্রস্ত তরুণদের অসামাজিক কর্মকান্ডে লিপ্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। কারিগরি শিক্ষায় বেকারত্ব সৃষ্টির কোনো আশঙ্কা নেই। তাই বর্তমান সরকার যুগোপযোগী কারিগরি শিক্ষার ব্যাপক প্রসারে কাজ করে যাচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহৃত হতে দেখা যাচ্ছে। এ প্রেক্ষিতে দেশের সাত হাজার কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা বিধানে বিশেষ নজরদারি রাখার জন্য মন্ত্রী সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

অনুষ্ঠানে সরকারি ও বেসরকারি ডিপ্লোমা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে প্রায় পাঁচশ’ প্রতিষ্ঠান প্রধান ও কারিগরি শিক্ষক অংশগ্রহণ করেন।