ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৩:৩৪ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

শিক্ষককে কান ধরে ওঠ-বস করানো নিন্দনীয় কাজ: আইনমন্ত্রী

শিক্ষককে কান ধরে ওঠ-বস করানোর ঘটনাকে অত্যন্ত নিন্দনীয় কাজ উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন এ ঘটনায় জড়িতরা অবশ্যই শাস্তি পাবেন।

মঙ্গলবার রাজধানীর বিচার-প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে বিচারকদের তিনদিন ব্যাপী প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী একথা বলেন।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে কান ধরে উঠ-বস করান নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি ও ব্যবসায়িক নেতা সেলিম ওসমান। বিদ্যালয় প্রাঙ্গণেই এ ঘটনা ঘটে। এসময় উপজেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারাও সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও প্রকাশসহ নিন্দার ঝড় উঠে। পরে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি তুলে ধরা হয়।

আইনমন্ত্রী বলেন, নারায়ণগঞ্জে প্রধান শিক্ষককে কান ধরে ওঠ-বস করানোর ঘটনায় জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা হবে। শিক্ষককে কান ধরে ওঠ-বস করানোর ঘটনাটি অত্যন্ত নিন্দনীয় কাজ।

তিনি বলেন, কেউ আইন নিজের হাতে তুলে নিতে পারেন না। আইন নিজের তুলে নেওয়া কখনই বরদাস্ত করা হবে না। ফৌজদারি কার্যবিধি অনুয়ায়ী এ ঘটনায় অভিযুক্তরা অবশ্যই শাস্তি পাবেন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী ও নাট্যকর্মী নিহত সোহাগী জাহান তনু হত্যা মামলা দ্রুত বিচার আইনে সম্পন্ন করার বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, তনু হত্যা মামলা গুরুত্বপূর্ণ মামলা। মামলাটি দ্রুত বিচার আইনে নেয়ার আবেদন করলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবেচনা করবে।

তনুর ধর্ষণের আলামত প্রসঙ্গে অপর এক প্রশ্নের জবাবে  আনিসুল হক বলেন, পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। তদন্ত প্রতিবেদন তারা আদালতে পেশ করবে। দুইটি তদন্ত প্রতিবেদনে গরমিল পাওয়া গেলে আদালত ব্যবস্থা নেবেন।

প্রসঙ্গত, তনু হত্যার ঘটনায় প্রথম ময়নাতদন্তে চিকিৎসকরা ধর্ষণের আলামত না পেলেও সংগৃহীত আলামতের ডিএনএ পরীক্ষা করে সিআইডি বলছে, খুন হওয়ার আগে ধর্ষিত হয়েছিলেন কুমিল্লার কলেজছাত্রী সোহাগী জাহান তনু।

তদন্ত সংস্থা সিআইডির বিশেষ সুপার আবদুল কাহহার আকন্দ সোমবার রাতে গণমাধ্যমকে এই তথ্য জানিয়েছেন।