ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:২৩ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

শহীদদের নিয়ে কটূক্তিঃ খালেদার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে কটূক্তি করায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ঢাকার সিএমএম আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়েছে।বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ শেষে হাকিম আতিকুর রহমান আদালতে আনা নালিশি অভিযোগের বিষয়ে শাহবাগ থানা পুলিশকে সরকারের অনুমোদন নিয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।
এর আগে রোববার সকালে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি মশিউর মালেক বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেন।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে মন্তব্য করায় শুক্রবার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছে নিউইয়র্কের এলায়েন্স অব বাংলাদেশি আমেরিকান।

নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তারা। পাকিস্তানের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করে ১৯৫ জন পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীকে বিচারের আওতায় আনারও দাবি জানান তারা।

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে মন্তব্য করায় শুক্রবার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছে নিউইয়র্কের এলায়েন্স অব বাংলাদেশী আমেরিকান।
নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তারা। এছাড়া পাকিস্তানের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করে ১৯৫ জন পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীকে বিচারের আওতায় আনারও দাবি জানান তারা।
মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২১ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিশনে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আজকে বলা হয় এত লাখ শহীদ হয়েছে, এটা নিয়েও অনেক বিতর্ক আছে।’

খালেদা জিয়া তার বক্তব্যে আরও বলেন, ‘তিনি (বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান) বাংলাদেশের স্বাধীনতা চাননি। তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলে মুক্তিযুদ্ধ হত না।’

মামলা এজহারে বলা হয়, এ বিষয়ে পরদিন বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে তা প্রকাশ হয়। আসামির এ ধরনের বক্তব্য শহীদদের অবমানসহ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ সৃষ্টি ও এর ইতিহাসের বিরুদ্ধে নিন্দাবাদ, ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচারের অপরাধের শামিল। এ ধরনের বক্তব্য রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। তাই রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে দণ্ডবিধি ১২৩(ক) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।