ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১১:৩৬ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

‘লাদেনের মতো নিরীহ মানুষকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন খালেদা’

আওয়ামী লীগ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি বলেছেন, আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনের মতো বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশের নিরীহ মানুষকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকার সময় গ্রেনেড মেরে মানুষ হত্যা করে, আর ক্ষমতায় না থাকার সময় পেট্রোল বোমা মেরে নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে।

বেগম খালেদা জিয়াকে লেডি লাদেন হিসেবে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, বিন লাদেন পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে বসে যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ার ধ্বংস করে আর বেগম খালেদা জিয়া তার গুলশানের কার্যালয়ে বসে পেট্রোল বোমা মেরে দেশের নিরীহ মানুষকে হত্যা করেছেন।

বেগম মতিয়া চৌধুরী আজ বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের দলীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তির দাবিতে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কামাল আহমেদ মজুমদার এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এমপি, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মণি এমপি ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুল হক সবুজের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফয়েজ উদ্দিন মিয়া, শেখ বজলুর রহমান, মুকুল চৌধুরী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ।

বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রেফতার হওয়ার পর দলীয় নেতা-কর্মীরা রাজপথে নেমেছে। তার মুক্তির জন্য সাতদিনের মধ্যে ২৫ লাখ মানুষের স্বাক্ষর সংগ্রহ করেছে।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা দেশের মানুষকে ভালোবাসেন বলেই নিজের জীবনকে তুচ্ছ করে তারা রাজপথে নেমে এসেছিল।

মতিয়া বলেন, দেশের জনগণের ওপর অত্যাচার করায় বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য জনগণ তো দূরের কথা তার দলের নেতা-কর্মীরাও রাস্তায় নামেনি।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, বিএনপির সময় থাকতে ভালো হওয়া দরকার। তাদের ভুল স্বীকার করে জনগণের কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত।
তিনি বলেন, আর ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনে অংশ না নিলে বিএনপির কোন অস্তিত্বই থাকবে না।

এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ২০২১ সালের আগেই দেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।

তিনি বলেন, বিএনপি দেশের গণতন্ত্র এবং অর্থনীতিকে ধ্বংস করতে চায়। তাদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।