ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:২৬ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৬ই আগস্ট ২০১৮ ইং

“লক্ষণেই বুঝে নিন আপনিই বসের প্রিয়”

প্রতি অফিসেই বসের একজন প্রিয় পাত্র থাকে। এই ব্যক্তিটির সাথে বসের সম্পর্ক থাকে ভালো, তাকে কিছু সুবিধা দেওয়া হয় যেগুলো আর দশজন সাধারণ কর্মচারীর ধরাছোঁয়ার বাইরে। কিন্তু এসব কিছু ছাড়াও একটা বিশেষ ব্যপারে আছে যা দেখে নিশ্চিত হওয়া যায় আপনি, হ্যাঁ আপনিই বসের সবচাইতে প্রিয় কর্মচারী।

প্রশংসা হতে পারে এমন একটি ব্যাপার। বস প্রায়ই আপনার কাজের প্রশংসা করলে আপনি বুঝতে পারবেন আপনি তার প্রিয়। সরাসরি প্রশংসা না করলেও তিনি আপনার কাজের মূল্য দেবেন। যেমন অন্য কাউকে আপনার কাছে রেফার করে দেবেন আপনার সাহায্য নেবার জন্য। এতে বোঝা যায় বস আপনাকে পছন্দ করে এবং আপনার ওপর ভরসা করে।

বসের প্রিয় মানুষটির প্রতি একটু ভালো ব্যবহার করেন অফিসের সবাই। বেশকিছু লক্ষণ দেখে ধরে নেওয়া যায় তিনি একটু বেশি সুবিধা পাচ্ছেন। কিন্তু একটি সুবিধা তাকে দেওয়া হয় যা সাধারণত অন্য কেউই পান না। আর তা হলো, “স্বাধীনতা”।

স্বাধীনতা অবশ্যই খারাপ কিছু নয়। কিন্তু সাধারণত এদেশের বিভিন্ন অফিসে নিজের ইচ্ছেমত কাজ করার স্বাধীনতা খুব কম মানুষেরই থাকে। এখানে অফিসে ইচ্ছেমত আসা-যাওয়ার স্বাধীনতা, নিজের বক্তব্য পেশ করার স্বাধীনতা, একই স্তরের অন্য কর্মচারীর চাইতে বেশি ক্ষমতা এগুলো দিয়ে বোঝা যায় বস আপনাকে একটু বেশি সুনজরে দেখেন। আসলে কিন্তু অন্যদের চাইতে বেশি সুবিধা পাওয়া এক সময়ে খারাপই হয়ে দাঁড়ায় কোম্পানি, বস, আপনার সহকর্মী এবং আপনার জন্যেও।

Tame Your Terrible Office Tyrant: How to Manage Childish Boss Behavior and Thrive in Your Job বইটির লেখক লিন টেইলর এর মতে, বসের প্রিয় মানুষ হবার জন্য অনেকেই চেষ্টা করতে পারেন। কিন্তু আসলেই যখন বসের প্রিয় পাত্র হয়ে পড়েন কেউ, তখন তার অবস্থাটা বেশ বিপজ্জনক হয়ে পড়ে। অন্যদের থেকে এই মানুষটি কিছু সুবিধা পায় যা আসলে তার পাবার কথা নয়। এই অন্যায় সুবিধা ভোগের কারণে অন্যদের কাজ করার ইচ্ছে কমে আসে, কেউ কেউ চাকরি ছেড়েও চলে যেতে পারেন। শুধু তাই না অন্যরা দাবি করতে পারেন কেন আপনি এতো সুবিধা ভোগ করছেন। এই সব সমস্যার দায় আপনার ঘাড়েই এসে পড়তে পারে।

বসের চোখে আপনি যদি একজন দক্ষ এবং প্রশংসনীয় কর্মী হয়ে থাকেন সেটা অবশ্যই ভালো কথা। কিন্তু আপনি যদি অতিরিক্ত সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে শুরু করেন তখনই এটা চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। আপনি এ ব্যাপারে কিছু কাজ করতে পারেন:

১) অন্যদের সাথে বসে কথা বলে জেনে নিতে পারেন এ ব্যাপারটাকে তারা কী নজরে দেখছে।

২) আপনার ম্যানেজারের থেকে পরামর্শ নিন এবং সে অনুযায়ী ব্যপারটার সুরাহা করুন।

৩) প্রজেক্ট এবং বিভিন্ন কাজের ব্যাপারে এমন সব কর্মচারীকে কাজে যুক্ত করার চেষ্টা করুন যাদেরকে সাধারণত বেশি সুবিধা দেওয়া হয় না।

৪) বস এবং হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজারের সহায়তা নিয়ে সব কর্মচারীকেই তাদের ভালো কাজের জন্য পুরস্কৃত করার ব্যবস্থা তৈরি করুন।

৫) শুধু আপনাকে সুবিধা না দিয়ে বরং পুরো টিমকে সুবিধা দেওয়াটা যে উপকারি, তা বসকে জানানোর চেষ্টা করুন।