Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৪:৩৯ ঢাকা, শুক্রবার  ১৬ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

রোগীদের দুর্ভোগ লাঘবে শাহবাগে আন্ডারপাস নির্মাণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

pm2-1-16-1জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্পেশালাইজড হাসপাতাল প্রকল্প, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় উন্নয়ন প্রকল্প এবং টাঙ্গাইলে মেডিকেল কলেজ স্থাপনসহ ৯টি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে এনইসি সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক-এর ১৯তম বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয় ।
অনুমোদিত নতুন ও সংশোধিত প্রকল্পসমূহের জন্য প্রকল্প ব্যয় হবে ৪ হাজার ৮শ’ ৫৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে জিওবি ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা, সংস্থার নিজস্ব তহবিল ১৭৩ কোটি ৯৩ লাখ টাকা এবং প্রকল্প সাহায্য ২ হাজার ২০৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ।
একনেক বৈঠক শেষে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের একথা জানান ।
পরিকল্পনা মন্ত্রী প্রেসব্রিফিংকালে বলেন, স্বাস্থ্য সেবা বিশ^মানে উন্নীত করার লক্ষ্যে চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নয়নে সরকার মেডিকেল সার্ভিসের সক্ষমতা বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারলে চিকিৎসা সেবার ব্যয় হ্রাস পাবে, বিদেশ নির্ভরতা কমে আসবে।
তিনি জানান, দেশে চিকিৎসক তৈরির পাশাপাশি আধুনিক নার্সিং পেশার প্রসার আবশ্যক। নার্সিং ইনস্টিটিউটের পাশাপাশি চাহিদা নিরূপণ করে নার্সিং কলেজ প্রতিষ্ঠার ওপর বৈঠকে গুরুত্বারোপ করা হয়।
তিনি জানান, আধুনিক চিকিৎসা নিশ্চিত করতে ১ হাজার ৩শ’ ৬৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয় সাপেক্ষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্পেশালাইজড হাসপাতাল প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। তিনি জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দেশে বিশেষায়িত চিকিৎসা সেবার নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে ।
মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করার জন্য আগত রোগীদের দুর্ভোগ লাঘব করতে একটি আন্ডারপাস নির্মাণের জন্য প্রধানমন্ত্রী বৈঠকে অনুশাসন দিয়েছেন বলে পরিকল্পনা মন্ত্রী জানান।
বৈঠকে মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীগণ, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্যবৃন্দ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
পরিকল্পনা মন্ত্রী জানান, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে আসন সংখ্যা বর্তমান ৪ হাজার ২শ’ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে সাড়ে ৬ হাজার হবে। ভবিষ্যতে এ আসন ১৫ হাজারে উন্নীত করা হবে।
একনেক বৈঠকে অনুমোদিত অন্য প্রকল্পসমূহ হচ্ছে- তিতাস গ্যাস ফিল্ডে গ্যাস উদগিরণ নিয়ন্ত্রণ এবং ফিল্ডের মূল্যায়ন ও উন্নয়ন (১ম সংশোধিত ) প্রকল্প, গোপালগঞ্জ জেলার গুরুত্বপূর্ণ পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প, জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প, নগরাঞ্চলের ভবন সুরক্ষা প্রকল্প, জাতীয় স্যানিটেশন প্রকল্প (৩য় পর্যায়) প্রকল্প এবং ফরিদপুর (বদরপুর) সালথা-সোনাপুর-মকসুদপুর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প।