শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:২৭ ঢাকা, শুক্রবার  ১৪ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

রুহুল কবির রিজভী
বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ফাইল ফটো

রাষ্ট্রীয় অর্থে বিএনপির বিরুদ্ধে সাইবার যুদ্ধ : রিজভী

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাষ্ট্রীয় অর্থ ব্যয় করে বিএনপির বিরুদ্ধে সরকার সাইবার যুদ্ধ শুরু করেছে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শনিবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনের বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, বর্তমান গণবিচ্ছিন্ন অবৈধ সরকার আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে রাষ্ট্রীয় অর্থে বিএনপির বিরুদ্ধে কুৎসিত সাইবার যুদ্ধ শুরু করেছে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনকে বাধাদান এবং এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো তাদের ভয়ংকর প্রোপাগান্ডায় সয়লাব।

‘ফেসবুক, ইউটিউব, টুইটার ইত্যাদি ছড়িয়ে দিচ্ছে বিদ্বেষমূলক নানা সুপার ইমপোজ করা ছবি, টেম্পারড নকল অডিও-ভিডিও।’

রিজভী বলেন, এসব নির্জলা মিথ্যাচার, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অশ্লীল রুচিহীন প্রোপাগান্ডা চালিয়ে দশ বছরের গুম-খুন- অত্যাচার-নিপীড়ন-জেল-জুলুম-সর্বগ্রাসী লুটপাট ও দুঃশাসন থেকে সরকার ভোটারদের দৃষ্টি অন্যদিকে সরাতে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ এই ধরনের গর্হিত অপকর্মে অর্ধশতাধিক অনলাইন পোর্টাল, ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক গ্রুপ ব্যবহার করছে। বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। নামে-বেনামে ভুয়া আইডির ফেসবুকে প্রতিদিন হাজার হাজার ডলার ব্যয় করে প্রমোশন দিয়ে বুস্ট করছে।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের এসব প্রোপাগান্ডা অনলাইন পোর্টাল, ইউটিউব চ্যানেল এবং ফেসবুক গ্রুপের মধ্যে রয়েছে-বাংলা ইনসাইডার, বাংলা নিউজ পোস্ট, আমাদের রাজনীতি, চিরায়ত বাংলাদেশ, নিউজ ফর অল, ছবির মত দেশ, বাংলাদেশি ভাইরাল ভিডিও, চেয়ারম্যান সাব, গেরিলা ৭১, শোন হে বাঙালী, সাইবার ফোর্স ৭১, রক্তঋণ একাত্তর, বঙ্গবন্ধু সাইবার ফোর্স, বঙ্গবন্ধু জিজিটাল ব্রিগেড, আওয়ামী সাইবার ব্রিগেড, আমজনতা, ভোরের পাতা, গুজবে কান দিবেন না, মোহাম্মদ এ আরাফাত প্রভৃতি।

প্রধানমন্ত্রীর অত্যন্ত আপনজনদের নামেও সাইবার ওয়েবসাইট খুলে অবান্তর, কাল্পনিক, উদ্ভট অপপ্রচার চালাতে সরকার হিসেববিহীন অর্থ ব্যয় করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

রিজভী বলেন, বিএনপির নেতাদের বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ প্রোপাগান্ডার কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠান হলো আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমণ্ডি অফিসে স্থাপিত ‘সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন-সিআরআই’- যার চেয়ারম্যান এবং হেড অফ স্ট্রাটেজি অ্যান্ড প্রোগ্রামার ট্রাস্টি প্রধানমন্ত্রীর আপনজনরা।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, গত ১৩ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম নেতাকর্মীদেরকে ফেসবুকে ভুয়া আইডি খুলে সাইবার যুদ্ধে নামার পরামর্শ দেন।

‘তারও কয়েক মাস আগে আওয়ামী লীগের ধানমণ্ডি কার্যালয়ে এক বৈঠকে ওবায়দুল কাদের অনলাইনে বিএনপির বিরুদ্ধে প্রচারণার সমন্বয়ের দায়িত্ব দেন দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুরকে।’

রিজভী আরও বলেন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে কুৎসা অপপ্রচারের জন্য কথিত সাংবাদিক সৈয়দ বোরহান কবির অনলাইন পোর্টাল ‘বাংলা ইনসাইডার’ ও ভিডিও চ্যানেল ‘বাংলা নিউজ পোস্ট’ চালাচ্ছেন। তার সঙ্গে রয়েছেন সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এ আরাফাত নামের জনৈক আওয়ামীপন্থী কথিত বুদ্ধিজীবী। আছে ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমানের কয়েকজন চিহ্নিত নেতা।

‘তারা প্রতিদিন মনগড়া আজগুবি সব নিউজ-ভিডিও রচনা করছেন। তথ্য সন্ত্রাস চালাচ্ছেন, যার পুরোটাই ঈর্ষা-প্রতিহিংসায় ভরা, মিথ্যার বেসাতি।’

ধানমণ্ডিতে আলিশান ভবনে বোরহান কবির ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের নামে টেকনোলজি ব্যবহার করে বানানো মিথ্যা কুরুচিপুর্ণ ভিডিও প্রতিদিন বিজ্ঞাপন আকারে ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন রিজভী।