Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:০১ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

রাতে ঢাকায় আসছেন মমতা

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

দুদিনের সফরে আজ রাতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি সংগ্রহশালা এবং ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (এফবিসিসিআই) সভায় যাব। কথা বলব বাংলাদেশের সুশীল সমাজের সঙ্গেও। এছাড়াও রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তো আলাদা করে বৈঠক হবেই। এ সফরের পর দুই বাংলার সম্পর্ক আরও মজবুত হবে। মমতার সঙ্গে আসছেন দুই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও ব্রাত্য বসু, দুই সেলিব্রেট সংসদ সদস্য মুনমুন সেন ও দীপক অধিকারী দেব, অভিনেতা অরিন্দম শীল, দুই গায়ক ইন্দ্রনীল সেন ও নচিকেতা, চিত্রপরিচালক গৌতম ঘোষ এবং দুই বাংলার সুপারস্টার প্রসেনজিৎ। পশ্চিমবঙ্গের কয়েকজন শিল্পপতিও সঙ্গে থাকছেন।
মমতার সচিবালয় সূত্রে খবর, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিজের লেখা বেশকিছু বই উপহার দেয়ার জন্য নিয়ে আসছেন মমতা। শেখ হাসিনার হাতে তিনি তুলে দেবেন পশ্চিমবঙ্গের বালুচরী এবং শান্তিনিকেতনের কাঁথাস্টিচের কয়েকটি শাড়ি ও বেশকিছু ঐতিহ্যমণ্ডিত উপহার। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের জন্যও বেশকিছু চমক দেয়া উপহার নিয়ে আসছেন তিনি।
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী যে এ সফরকে খুবই গুরুত্ব দিচ্ছেন তার প্রমাণ মিলেছে আরও দুই প্রখ্যাত অভিনেতা-অভিনেত্রী এবং আরও এক গায়ককে প্রতিনিধিদলে অন্তর্ভুক্ত করার মধ্য দিয়ে। এরা হলেন মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের মেয়ে মুনমুন সেন এবং দুই বাংলার যৌথ প্রযোজনার সিনেমা মনের মানুষ-এ লালন ফকিরের চরিত্রে অভিনয় করা টালিউডের সুপারস্টার প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। মুনমুন ঢাকা এলেও এবার তিনি মায়ের পৈতৃক ভিটে পাবনা যাচ্ছেন না। শিল্পী ইন্দ্রনীল সেন দলে ছিলেন এবার যুক্ত হলেন আরেক জীবনমুখী শিল্পী নচিকেতা। মাসখানেক আগে একবার নচিকেতা ঢাকা ও বরিশাল ঘুরে এসেছেন। বরিশালে নচিকেতার পৈতৃক ভিটে। তবে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে কী কথা হবে? প্রশ্নের উত্তরে সবাই একবাক্যে বলেছেন, কী কথা হবে, তা একমাত্র মমতাদিই জানেন। তবে দিদি (হাসিনা) ও বোন (মমতা) একসঙ্গে যখন প্রাণের কথা বলতে বসবেন তখন সব কিছুই আলোচনায় আসতে পারে। মমতার সফরসঙ্গী প্রখ্যাত কবি সুবোধ সরকার শেখ হাসিনাকে নিয়ে কবিতা লিখেছেন। কাল হাসিনা-মমতা বৈঠকের আগেই সেই কবিতাটি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে তুলে দেবেন সুবোধ।
সফরের মূল থিম কী? কী উদ্দেশ্যে মমতা ঢাকা আসছেন? পর পর দুটি প্রশ্নের উত্তরে মমতার সফরসঙ্গী মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বুধবার জানান, অনেকদিন থেকেই মমতাদি ঢাকা সফরে যাবেন বলছিলেন। বার বার ওদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তরফে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যরা আমন্ত্রণ জানাচ্ছিলেন। দুদেশের ভাষা, জলবায়ু ও সংস্কৃতি এক। প্রতিবেশী দেশ শুধু নয়, কার্যত কলকাতার যমজ শহর ঢাকায় জীবনযাত্রাও অনেকটা এক। তাই এবার যখন ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ এলো, তখন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতাদি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে কী কী আলোচনা হতে পারে? প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগেই ফিরহাদ বলেন, মমতাদি যখন রেলমন্ত্রী ছিলেন তখন তিনি ঢাকা গিয়েছিলেন। তার উদ্যোগেই প্রথম ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী এক্সপ্রেস চালু হয়। ২০০৯-১০ সালে মমতাদির সঙ্গে মাঝেমধ্যেই শেখ হাসিনার কথা হতো বলে আমরা শুনেছি। বস্তুত, দুই নেত্রীর সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক এবং ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। তাই যে কোনো আলোচনা হতেই পারে।
মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে ঢাকা আসা-যাওয়ার প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করেছেন পর্যটনমন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তিনি অবশ্য স্পষ্ট করেছেন, বাংলাদেশের যারা পশ্চিমবঙ্গে আসেন তারা মূলত মুর্শিদাবাদ, দার্জিলিং ও শান্তিনিকেতনে ঘুইে চলে যান। কিন্তু হাতি-গণ্ডারে ভরা পশ্চিমবঙ্গের তরাই-ডুয়ার্স যে সৌন্দর্যের অমরাবতী তা আমরা ঢাকা সফরে তুলে ধরব। জঙ্গলমহল এবং দিঘা-মন্দারমনি থেকে শুরু করে বাঁকুড়া-বিষ্ণুপুরের স্থাপত্য ও সৈকতভূমিতেও বাংলাদেশীদের আসার জন্য আহ্বান জানাবেন মুখ্যমন্ত্রী।