ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:৫৪ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

যৌন মিলনের বাসনা কমে যাওয়ার লক্ষণ ও উপসর্গ

১. দুই মাসেরও অধিক সময় যাবৎ যৌন ক্রিয়ার প্রতি কোন আগ্রহ অনুভব না করা।

২. যৌন মিলন এড়িয়ে যাওয়া, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে যৌন মিলনের বাসনা অত্যন্ত কম অনুভব করা, কিংবা যৌন মিলনের প্রতি দু:শ্চিন্তা বা উদ্বেগ থাকা।

৩. কখনও কখনও আগেই বীর্যপাত ঘটা, যৌনমিলনের সময় ব্যথা হওয়া, ধ্বজভঙ্গ বা অক্ষমতা কিংবা তীব্র যৌন সুখ পেতে অক্ষমতা।

কী করা উচিত :

১. আপনার যৌন জীবন নিয়ে বিভিন্ন রকম অভিজ্ঞতা করে দেখুন – ভিন্ন স্হানে যৌন মিলনে লিপ্ত হন, ভিন্ন অবস্হানে বা পজিশনে যৌনমিলন করুন, এবং একই সময়ে যৌন মিলনে লিপ্ত না হয়ে বরং বিভিন্ন সময়ে যৌন মিলনে লিপ্ত হোন।

২. যদি আপনার মধ্যে উদ্বেগ থাকে যে আপনি ঠিক মতো যৌন মিলনে সক্রিয় হয়ে উঠতে পারবেন কি না সেক্ষেত্রে সেটা আপনার সঙ্গীর সাথে আলাপ করুন, তবে যৌন মিলনের সময় এ কাজটি না করে আগে করবেন।

৩. আপনাকে কোন বিষয়গুলো যৌনভাবে সক্রিয় করে তোলে সে বিষয়ে আপনার সঙ্গীর সাথে আলাপ করুন।

৪. যৌন উদ্দীপক বই পত্র পড়ুন, যৌন উদ্দীপক ছবিও দেখতে পারেন, কিংবা যৌন বিষয়ক কল্পনাতেও নিজেকে নিয়োজিত করে দেখতে পারেন – অবশ্য যদি এগুলো আপনাকে আকর্ষিত করে তবেই।

কখন ডাক্তার দেখাবেন :

১. যদি যৌন মিলনের আগ্রহ কমে যাওয়ায় আপনার জীবন সঙ্গীর সাথে ঝামেলা বা অসন্তোষের সৃষ্টি হয়।

২. যদি আপনার মধ্যে ধ্বজভঙ্গ বা এ সংক্রান্ত অক্ষমতার জন্ম নেয়, কিংবা যদি যৌন মিলনের সময় যৌনাঙ্গে ব্যথা হয়।

৩. নিজে নিজে যৌন উদ্দীপ্ত হতে অক্ষম হলে, হয়তো আপনার কোন রোগ হয়েছে

৪. যদি আপনার মনে হয় কোন ওষুধ সেবনের কারণে আপনার এই দশা হয়েছে

৫. যদি এই কারণে আপনি বিষণí এবং বিষাদময় হয়ে ওঠেন।

কীভাবে প্রতিরোধ করবেন :

১. স্ট্রেস বা চাপ কমাবার লক্ষ্যে যা কিছু করা প্রয়োজন করুন।

২. নিয়মিত ব্যায়াম চর্চা করুন এবং ভালো খাবার খান; এবং প্রচুর পরিমাণে ঘুমান।
৩. আপনার জীবন সঙ্গীকে যথেষ্ট সময়দিন অর্থাৎ তার সাথে যথেষ্ট সময় অতিবাহন করুন।

৪. আপনাদের সম্পর্কের মাঝে কোন সমস্যা তৈরি হবার আগেই সমাধানের পদক্ষেপ গ্রহণ করুন। সূত্রঃ ওয়েবসাইট

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন