ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:৩৮ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

যুব সমাজকে নেতৃত্বের সুযোগ সৃষ্টির ব্যবস্থা করতে হবে

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী তিনি তরুণদের সমাজ পরিবর্তনের কান্ডারি উল্লেখ করে বলেছেন, যুব সমাজকে নেতৃত্ব প্রদানের সুযোগ সৃষ্টির যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে যুব সমাজসহ সকলকে একযোগে কাজ করার আহবান জানান তিনি।
আজ সিরডাপ মিলনায়তনে ইয়ূথ ফোরাম আয়োজিত বাংলাদেশ ইয়ূথ পার্লামেন্ট-২০১৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্পিকার একথা বলেন।
তিনি বলেন, সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে দেশের সুষম উন্নয়ন, তথা জাতীয় সমৃদ্ধি অর্জন নিশ্চিত করতে সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডে যুব সমাজকে সম্পৃক্ত করতে হবে। পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে সমাজের অধিকার বঞ্চিতদের জন্য যুব সমাজকে কাজ করতে হবে।
তিনি বলেন, যুব সমাজ তাদের উদ্ভাবনী ক্ষমতা কাজে লাগিয়ে সমাজের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে পারে। তাই সমাজের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে যুব সমাজকেই এগিয়ে আসতে হবে। যুব সমাজই আগামী দিনের নেতৃত্ব প্রদান করবে। তাই আইনের শাসন, মানবাধিকার, সংসদীয় কর্মকা-, আইন প্রণয়ন প্রভৃতি বিষয়ে তরুণদেরকে সচেতন করে যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে তুলতে হবে।
তিনি বলেন, আয়বর্ধক কর্মকা-ে নারীদের সম্পৃক্ত করা, ঝুঁকিপূর্ণ কাজ থেকে শিশুদের নিবৃত্ত করাসহ সামাজিক দায়বদ্ধতার সকল ক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংগঠনগুলোকেও এগিয়ে আসতে হবে।
স্পিকার বলেন, নারী ও শিশুসহ সকলকে আইনের আশ্রয় লাভের সমান সুযোগ করে দিতে হবে। বাল্যবিবাহ ও মাদকের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। প্রচলিত সামাজিক মূল্যবোধের পরিবর্তনসহ মানুষের চিন্তা-চেতনার পরিবর্তন আনতে হবে।
তিনি বলেন, দারিদ্র্য-বিমোচনসহ অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের সকল সূচকে অগ্রগতি থাকলেও বৈষম্য নিরসনে অনেক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। এ সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় যুব-সমাজসহ সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।
ইয়ূথ ফোরামের সিইও তানজিনা নওশিনের সভাপতিত্বে যুব ও ক্রীড়া উপ-মন্ত্রী আরিফ খান জয়, কানাডার ভারপ্রাপ্ত হাইকমিশনার ব্রায়ান অ্যালমেকিন্ডার্স, পিকেএসএফ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল করিম ও সিরডাপ এর মহাপরিচালক সেসেপ আফেন্দি বক্তৃতা করেন।