Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:৫০ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ইসরাইলি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মোশে ইয়া’লন

যুক্তরাষ্ট্রে ইসরাইলি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী অপদস্থ

শীর্ষ মিডিয়া ২৬ অক্টোবর ঃ   যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে ইসরাইলি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মোশে ইয়া’লনের সাথে সাক্ষাৎ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সুসান রাইস। এটি একটি নজিরবিহীন ঘটনা।গত সপ্তাহে ইয়া’লন যুক্তরাষ্ট্র সফরে যান। শুক্রবার ঊর্ধ্বতন আমেরিকান কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ইয়া’লনকে পাত্তা না দেওয়ার অন্যতম কারণ ছিল ছয় মাস আগে ওবামা প্রশাসনের বিরুদ্ধে তার দেয়া কয়েকটি বিবৃতি। তিনি তার বিবৃতিতে ওবামা প্রশাসনের কঠোর সমালোচনা করেন, বিশেষ করে জন কেরির। একজন সিনিয়র মার্কিন কর্মকর্তা হারেৎজকে জানান, ‘এতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। সাম্প্রতিক অতীতে করা তার কিছু মন্তব্যের কারণেই কয়েকটি বৈঠকে তার উপস্থিত থাকাকে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।’ সফরকালে ইয়া’লন প্রতিরক্ষামন্ত্রী চাক হেগেল এবং জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত সামান্থা পাওয়ারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

একজন সিনিয়র মার্কিন কর্মকর্তা এপিকে জানান, ইয়া’লনকে শিক্ষা দিতেই হোয়াইট হাউস তার যোগদানকে প্রত্যাখ্যান করে। শুক্রবার হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব জোস আরনেস্ট এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জেন সাকি তাদের প্রতিদিনের সংবাদ সম্মেলনে এই খবরটিকে অস্বীকার করেনি। তারা এ বিষয়ে বিস্তারিত উল্লেখ না করে কেবলমাত্র স্বল্পভাষায় কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে বলেন, ‘ইয়া’লনের সাথে তার মার্কিন সহযোগী হেগেলের বৈঠকটি ছিল একটি স্বাভাবিক কার্যবিধি।’ ইয়া’লন ওবামা প্রশাসনের উর্ধ্বতন সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে চাওয়ার অনুরোধ জানান। এক সপ্তাহ আগে তার এই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করে ওবামা প্রশাসন।

ইসরাইলি প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে প্রকাশ্যে অপদস্থ করার উদ্দেশ্যেই সংবাদটি প্রকাশ করতে ওয়াশিংটন তার সফর শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করে। মার্কিন প্রশাসনের সিনিয়র কর্মকর্তারা ইসরাইলি নিউজ ওয়েবসাইট ওয়াইনেটে সংবাদটি প্রথম ফাঁস করেন। তারপর এপি সংবাদ সংস্থা ও অন্যান্য গণমাধ্যম সংবাদটি প্রকাশ করেন। শুক্রবার বিকেলে ইয়া’লন ইসরাইলে ফিরে যাওয়ার ঠিক পরেই মার্কিন কর্মকর্তারা সংবাদটি প্রকাশ করেন। যুক্তরাষ্ট্র সফরের সময় ইয়া’লন তার এবং মার্কিন প্রশাসনের মধ্যকার বিরোধ মিটিয়ে ফেলার চেষ্টা করেন। ওয়াশিংটন সফরে ইয়া’লন ওয়াশিংটন পোস্টকে একটি সাক্ষাৎকার দেন। সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেন তার এবং কেরির মধ্যে সংকটের সমাধান হয়ে গেছে।  ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে তার বৈঠকের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার সংবাদটি মার্কিন কর্মকর্তারা ফাঁস করে দেয়ার ঘটনায় তিনি বিস্ময় প্রকাশ করেন। তবে তিনি ওবামা প্রশাসনের সঙ্গে নতুন করে আরো একটি প্রকাশ্য বিরোধ শুরু করতে অনিহা প্রকাশ করেন। চলতি বছরের শুরুতে ওবামা প্রশাসনের বিরুদ্ধে ইয়া’লনের ধারাবাহিক বিবৃতির ফলে ইয়া’লন এবং ঊর্ধ্বতন মার্কিন কর্মকর্তাদের মধ্যে সর্ম্পকের অবনতি ঘটে।

গত জানুয়ারিতে ইয়া’লন ইসরাইলি সংবাদপত্র ইয়েদিয়থ অহরোনথে কেরিকে দোষারোপ করে একটি বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে তিনি কেরিকে ইসরাইল এবং ফিলিস্তিন মধ্যকার শান্তি প্রক্রিয়াকে উন্নীত করতে তার প্রচেষ্টাকে অলীক চিন্তা ও ত্রাণকর্তার ভুমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার সঙ্গে তুলনা করেন।