ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৫:৪১ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

যারা ধ্বংসযজ্ঞ চালায় ও নির্দেশ দেয় তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হবে

নৌপরিবহণ মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, আন্দোলনের নামে মানুষ হত্যা, গাড়ি ভাঙচুর, জ্বালাও পোড়াও-এর বিরুদ্ধে শ্রমজীবী মানুষসহ দেশের সকলকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। হরতাল অবরোধের নামে ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম আগে কখনও ঘটেনি। যারা ধ্বংসযজ্ঞ চালায় এবং যারা নির্দেশ দেয় তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হবে।
আজ ঢাকায় পার্লামেন্ট মেম্বার্স ক্লাবে চলমান অবরোধ পরিস্থিতি মোকাবিলায় শ্রমিক-কর্মচারী সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্বকালে তিনি একথা বলেন।
সভায় ২০ দলীয় জোটের অবরোধের বিরুদ্ধে শ্রমিক সমাজকে রক্ষা করতে বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারী পেশাজীবী ও মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদ গঠন করা হয়। এ সমন্বয় পরিষদের আহ্বায়ক হলেন নৌপরিবহণ মন্ত্রী শাজাহান খান।
সভায় বাংলাদেশের গার্মেন্টস, সড়ক, নৌ ও রেল পরিবহণ, জুট, টেক্সটাইল, ইমারত, ট্যানারি, যুব উন্নয়ন, বাস্তুহারা, গৃহশ্রমিক, বিদ্যুৎ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চসহ বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
শাজাহান খান বলেন, আন্দোলনকারীরা ঘুমন্ত মানুষের উপর আক্রমণ করছে, তারা নিরীহ মানুষকে হত্যা করছে। এদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।
তিনি বলেন, দেশ পরিচালিত হবে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের ভিত্তিতে। যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করেনা, দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব তাদের হাতে নিরাপদ নয়। সংলাপ হতে পারে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের লোকদের সাথে।
উল্লেখ্য, অবরোধের নামে মানুষ হত্যা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের বিরুদ্ধে ২৩ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে বিকেল ৩টায় প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করবে বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারী পেশাজীবী ও মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদ। ২৪ থেকে ২৮ জানুয়ারি সমন্বয় পরিষদ বিভিন্ন শ্রেণির শ্রমিক কর্মচারী ও পেশাজীবী সংগঠনের সাথে সংহতি সমাবেশ এবং ৩০ জানুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহাসমাবেশ করবে। মতবিনিময় সভায় এসব সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।