ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৩:০৪ ঢাকা, বুধবার  ১৫ই আগস্ট ২০১৮ ইং

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের একাধিক অ্যাকাউন্ট বন্ধের নির্দেশ

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের হিসাব পরিচালনার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের জন্য বিধিনিষেধ আরোপ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। নতুন এ নির্দেশনা অনুযায়ী একজন গ্রাহক একের বেশি অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করতে পারবেন না। ইতোমধ্যে যেসব গ্রাহকের একাধিক হিসাব রয়েছে, তাদের একটি রেখে বাকিগুলো বন্ধ করে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বিভিন্ন অনিয়মের বেড়াজালে আটকে গেছে দেশের মোবাইল ব্যাংকিং। প্রায় প্রতিদিনই এ বিষয়ে বিভিন্ন অভিযোগ আসছে। ২০১১ সালের ৩১ মার্চ ডাচ বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে দেশের মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম। মাত্র তিন বছরের মধ্যে এর মাধ্যমে বিভিন্ন অনিয়ম, নিয়ম না মানা, প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকের অর্থ আত্মসাতের মতো নানা অপকর্ম ছড়িয়ে পড়েছে। বিষয়গুলো নিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক রীতিমতো বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে। প্রতারণা বন্ধে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে নীতিমালা হালনাগাদ করেছে। কিন্তু এর পরও প্রতারণা বন্ধ হচ্ছে না। হালে প্রতারণার মাধ্যমে চাকরি দেয়ার নামে প্রায় আড়াই হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে ২৫ কোটি টাকার ওপরে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার দায়ে প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম বাতিল করে বাংলাদেশ ব্যাংক।
বাংলাদেশ ব্যাংকের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রতারণা ব্যাপক হারে বেড়ে গেছে। ভুক্তভোগী গ্রাহকেরা বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে হরহামেশাই অভিযোগ করছে। সর্বশেষ গত ১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং অপারেটরদের জন্য মোবাইল ব্যাংকের মাধ্যমে জালিয়াতি ও প্রতারণা বন্ধে কঠোর নির্দেশনা জারি করে। কিন্তু এর পরও প্রতারণা বন্ধ হচ্ছে না। বরং দিন দিন প্রতারণা বেড়ে গেছে।
প্রতারণার মাধ্যমে চাকরির দেয়ার নামে আড়াই হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয় প্রাইম ব্যাংকের পার্টনার প্রতিষ্ঠানএসএমজি ইনফোকম লিমিটেড। এ অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রাইম ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং লাইসেন্স বাতিল করে বাংলাদেশ ব্যাংক।
মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রতারণা বন্ধে প্রতিদিন লেনদেনের সীমা নির্ধারণ করে দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। গত বছর জারিকৃত এক সার্কুলারে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রতিদিন তিনবারের বেশি টাকা উত্তোলন করতে পারবেন না বলে নির্দেশনা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। আর প্রতিবার ২৫ হাজার টাকার বেশি লেনদেন করা যাবে না। একই সাথে গ্রাহকের মোবাইল হিসাব থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে তার সাথে লেনদেন করতে হবে। মোবাইলের মাধ্যমে জালিয়াতি ও প্রতারণা বন্ধে বাংলাদেশ ব্যাংক এক সার্কুলারের মাধ্যমে এ নির্দেশনা জারি করেছিল।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গ্রাহকের লেনদেনের সীমা নির্ধারণ করে দেয়া হলেও গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট সংখ্যার ক্ষেত্রে নির্ধারিত কোনো সীমারেখা ছিল না। গ্রাহক প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে একই ব্যক্তি একাধিক অ্যাকাউন্ট খুলছেন এবং নিবন্ধনহীন গ্রাহকের মাধ্যমে লেনদেন করছেন, যা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রতারণাকে আরো উৎসাহিত করছে। কেননা নিবন্ধনহীন গ্রাহকের মাধ্যমে লেনদেন সংঘটিত হলে এর সাথে সম্পৃক্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা সম্ভব হবে না।
মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নিবন্ধনহীন গ্রাহকের পক্ষে লেনদেন বন্ধে গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংক নতুন নির্দেশনা দিয়েছে। নির্দেশনার মধ্যে একজন গ্রাহক একাধিক মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস প্রদানকারী ব্যাংক বা সাবসিডিয়ারির একাধিক অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন না। পাশাপাশি ইতোমধ্যে যেসব গ্রাহক একাধিক অ্যাকাউন্ট খুলেছেন তার মধ্যে একটি রেখে বাকিগুলো অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন